মাত্র ৯ হাজার টাকায় ব্যবসা শুরু করে দিনমজুর থেকে কোটিপতি এই ফ্রেন্ডস গ্ৰুপ, যেভাবে শুরু করবেন এই ব্যবসা!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- মানুষকে জীবনে সামান্য পরিমাণ অভাব এর মধ্য দিয়ে যেতে হতেই পারে এবং এই অভাব আগামী দিনে তাকে প্রতিষ্ঠিত করতে গভীরভাবে সাহায্য করে । এই ঘটনা প্রমাণ আমরা বহুবার পেয়েছি সম্প্রতি পেলাম আর একবার সমাজে এমন অনেক ধরনের মানুষ আছে যার নিরন্তন পরিশ্রম করে চলেছে শুধুমাত্র প্রতিষ্ঠিত হবার জন্য । কেউ চাকরির মাধ্যমে কেউ আবার ব্যবসার মাধ্যমে ।

কখনো কখনো সফলতা মিললেও অনেক ক্ষেত্রেই মেলে বিফলতা । সেখানে হাল ছেড়ে দেয় তারা জীবন যু-দ্ধে হেরে গেছে । আর যারা সেখান থেকে আবার পুনরায় আশা নিয়ে নতুন কিছু করার স্বপ্ন দেখে তারাই হল আসল যো-দ্ধা । ঠিক তেমনই এক আসল যো-দ্ধার কথা আপনাদের সামনে এই মুহূর্তে বলতে চলেছে যার নাম চঞ্চল হোসেন । অভাবের জন্য চতুর্থ শ্রেণীর টানতে হয়েছিল পড়াশোনা তে ইতি ।

তারপর তিন বেলা দুবেলা দুমুঠো ভাত খেতে পারে তার জন্য ১১ বছর ধরে হ্যাচারিতে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেছেন । তারপর নিজে একটি হ্যাচারি খুলেছেন মাত্র ৯ হাজার টাকা দিয়ে । এখন তিনি কোটি কোটি টাকার মালিক । সমাজের লক্ষ লক্ষ বেকার যুবকের অনুপ্রেরণা । কারণ চঞ্চল ২০০১ সালে চতুর্থ শ্রেণি পাশ করার পর আর তেমনভাবে পড়া হয়নি তার । এ রপর ২০০১ সালে তিনি হ্যাচারিতে কাজের জন্য ঢুকে যায় ।

তিনি সেখানে গিয়ে দেখেন অন্যান্য মাছের তুলনায় দেশি মাছের কদর এবং দাম অনেক বেশি । তাই তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে বড় হয়ে পারলে একটু দেশি মাছের হ্যাচারি খুলবেন । অবশেষে ২০১২ সালে মাত্র ৯ হাজার টাকা নিয়ে একটি হ্যাচারি সূচনা করে চঞ্চল। প্রথমে ছিল দেশীয় মাগুর মাছের রেণু থেকে পোনা মাছ উৎপাদন। তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এখন শুধু দেশীয় মাছের ডিম ও পোনা উৎপাদন করে নওগাঁর বদলগাছি উপজেলার কাশিমালা গ্রামের চঞ্চল হোসেন স্বাবলম্বী।

চঞ্চল এখন শুধু সফল মাছ চাষীই নন, দেশীয় মাছের পোনা উৎপাদনে একজন সফল গবেষকও। সে নিজেই মা মাছ থেকে ডিম, রেণু ফুটানো সকল কাজ দক্ষতার সাথে করতে পারেন। এখন তিনি নওগাঁর মানুষের কাছে রোল মডেল। মৎস্য চাষের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দু’বার পুরস্কার পেয়েছেন। চ-ঞ্চলের মতন ছেলে এই সমাজে অনুপ্রেরণার কারণ ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button