টবে থাকা গাছের গোড়ায় রোজ দিন ঘরেতে তৈরি এই একটি দুর্দান্ত সার, অল্পদিনেই গাছ জুড়ে ধরবে প্রচুর ফুল ফল

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই কিন্তু বিভিন্ন গাছ রয়েছে যা আমরা পরিচর্যা করতে খুবই ভালোবাসি। তবে সব সময় যে গাছের পরিচর্যা করার জন্য আপনাদের বাজার থেকে সার কিনে প্রয়োগ করতে হবে বা রাসায়নিক সার দিতে হবে এমন কোন মানে নেই।

আপনারা কিন্তু চাইলে বিনা খরচে বাড়িতেই জৈব সার তৈরি করে নিতে পারেন। চলুন কিভাবে এই জৈব সার তৈরি করবেন সেই বিষয়ে একটু বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক। আজ আমরা যে সারটি তৈরি সম্পর্কে আপনাদের বলব তার মধ্যে পটাশিয়াম ক্যালসিয়াম ম্যাগনেসিয়াম থেকে শুরু করে প্রচুর পরিমাণে এমন উপাদান রয়েছে যা গাছের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে থাকে।

এই জৈব সার তৈরি করার জন্য আপনাদের প্রথমেই দুটো আলু নিয়ে নিতে হবে। আসলে আলু না নিলেও হবে রান্না করার সময় যখন আলু ব্যবহার করা হয় সেই খোসাটা আপনারা সংগ্রহ করে রাখবেন। সাধারণত এই আলুর খোসা আমরা ফেলে দিয়ে থাকি তবে এবার থেকে আর সেটা করবেন না।

আলুর খোসা গুলোকে একটা কাঁচের বোতলে আপনাদের ভরে নিতে হবে। মোটামুটি যতটা হলে বোতলটা ঝাঁকানো যাবে ততটুকু ফাঁকা রেখে এর মধ্যে জল ভরে দিন। ছায়াযুক্ত স্থানে এই বোতলটাকে রেখে দেবেন কোন রৌদ্রোজ্জ্বল জায়গায় রাখবেন না। রৌদ্রজ্জ্বল স্থানে রাখলে এই সারের গুণগতমান অনেকটাই কমে যেতে পারে।

এই সার তৈরি করতে মোটামুটি দুই থেকে চার দিন পর্যন্ত সময় লাগে ‌। গ্রীষ্মকালের ক্ষেত্রে সময়সীমা দুই দিন এবং শীতকালের ক্ষেত্রে চার দিন। আসলে শীতকালে ডি-কম্পোজ হতে দেরি হয় তাই সময় একটু বেশি লেগে যায়। নির্ধারিত সময় পর আপনারা দেখবেন আলুর সাথে থাকা জলের রং অনেকটাই বদলে গিয়েছে। এবার চাইলে এই সারের সঙ্গে আরও কিছুটা পরিমাণ জল মিশিয়ে নিতে পারেন আবার এটাকে সরাসরি গাছের গোড়াতে প্রয়োগ করে দিতে পারেন।

সকাল বা সন্ধ্যের দিকে ১৫ থেকে ২০ দিন অন্তর আপনারা যেকোনো ধরনের গাছে এই আলু দিয়ে তৈরি জৈব সার ব্যবহার করতে পারবেন। এটা এতটাই কার্যকরী সাহায্যে খুব সহজেই আপনার গাছের বৃদ্ধি থেকে শুরু করে ফলন বাড়তে থাকবে। এমনকি আপনার গাছের কুঁড়ি যদি ঝরে পড়ে যায় তাহলে এই সার আবার ভালো করে নিয়ে আসতে সাহায্য করবে। আজকের এই বিশেষ টিপস আপনাদের কেমন লাগলো তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button