চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে পা পিছলে গেল মহিলার! তারপর যা ঘটলো! ভিডিও দেখে শিউরে উঠলো নেটবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদন: সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নামক এই প্লাটফর্মটি বর্তমানে মানব জীবনের সাথে রীতিমতন ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। এমন কোন বিষয় নেই যার খোঁজ এই প্লাটফর্মে আমরা পাইনা। আজকাল অনেকেই তো এই সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবসা বা অর্থ উপার্জন করার একটা মাধ্যম হিসেবেও ব্যবহার করছেন। আবার অনেকেই একে ব্যবহার করছেন নিজেদের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটানোর জন্য এবং মানুষের মধ্যে নিজের পরিচিতি তৈরি করার জন্য।

আজকাল সোশ্যাল মিডিয়াতে কিন্তু বিভিন্ন কনটেন্ট থিয়েটারদের আপনারা পেয়ে যাবেন যাদের ভিডিও দেখে আনন্দ পেয়ে থাকেন সাধারণ মানুষ ‌। যার মধ্যে ভীষণভাবে জনপ্রিয় হচ্ছে ইউটিউবার বা ক্রিয়েটরদের ভ্লগ ভিডিও। অবশ্য youtube চ্যানেল বা ফেসবুক পেজ থেকে এই ধরনের ভিডিওগুলি তারা শেয়ার করে থাকেন। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে অনেক সেলিব্রেটিরাও কিন্তু এই ধরনের ভিডিও তৈরি করেন। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা এমনই একটি ভিডিও নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব যার কয়েকটি দৃশ্য সাধারন মানুষকে রীতিমতন অবাক করে রেখে দিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ার উপকারিতা আর অপকারিতা দুটো দিকই রয়েছে। উপকারিতা বলতে একদিকে যেমন আমরা বলতে পারি এর দ্রুততা বা অসাধারণ সার্কুলেশনের কথা। ঠিক তেমনভাবেই অপকারিতা হিসেবে বলা যেতে পারে এই নেট মাধ্যম ব্যবহারের ফলেই কিন্তু সাইবার অপরাধের সংখ্যা বর্তমানে প্রচুর পরিমাণে বেড়ে গিয়েছে। শুধু তাই নয় এমন বহু মানুষ রয়েছেন যারা এই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের কারণে মানসিক অবসাদে ভুগছেন।

অতিরিক্ত সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় কাটানোর জন্য শিশুদের পড়ার মনোযোগ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এবং তারা ধীরে ধীরে ইন্টারনেটের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে। তাই বিশেষজ্ঞরা বারবার এই জগতকে নিয়ন্ত্রণ বজায় রেখেই ব্যবহার করার কথা বলেছেন। যদিও এই ব্যাপার যে সাধারণ মানুষের মধ্যে খুব একটা প্রভাব ফেলে নি সে কথা আমরা নিঃসন্দেহে বলতে পারি। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা যে ভিডিওটির কথা বলছিলাম আসুন সেটা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

সম্প্রতি ইউটিউবে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে উঠেছে যেখানে দেখা যাচ্ছে একজন যুবক জানকি এক্সপ্রেস এর ভ্রমণের একটি ভ্লগ শেয়ার করে নিয়েছেন। প্রায় ২৭ মিনিটের এই ভিডিওতে ট্রেনের সময়সীমা থেকে শুরু করে ভ্রমণের যাত্রাপথ আর অভিজ্ঞতা সবকিছুই দেখিয়েছেন তিনি। তবে এই ভিডিওর ঠিক মাঝখানে এমন একটি দৃশ্য নেট নাগরিকদের চোখে পড়েছে যা অনেকেই মেনে নিতে পারেননি। দেখা যায় এই ট্রেনটি নিজের সময় অনুযায়ী কোন একটি স্টেশনে থেমেছিল।

কিন্তু ওই নির্ধারিত সময়ে দুজন যাত্রী পরিবার ট্রেন ধরতে পারেননি। এরপর যখন ট্রেন ছেড়ে একদম প্লাটফর্ম থেকে বেরিয়ে যাওয়ার উপক্রম ঠিক সেই মুহূর্তেই প্রথমে দুজন বাচ্চা এবং তার ঠিক পরেই তাদের বাবা-মা অর্থাৎ একজন মহিলা এবং তার স্বামী রীতিমতন দৌড়াতে দৌড়াতে ট্রেনে ওঠেন। চলন্ত ট্রেনের মধ্যে এভাবে ওঠা যে কতটা ভয়াবহ আর বিপদজনক তা আপনারা সকলেই জানেন। ভিডিওতে দেখা যায় যে দুজন বাচ্চা প্রথমে উঠেছিল তার মধ্যে দ্বিতীয় জন তো রীতি মতন পড়েই যাচ্ছিল কিন্তু তার মা তাকে কোনোমতে পেছন থেকে ব্যালেন্স দিয়ে সামলে নেয়।

এরপর শাড়ি পড়া ওই মহিলা যখন নিজে ট্রেনে উঠতে চান কয়েক সেকেন্ডের জন্য তিনি নিজের ব্যালেন্স হারিয়ে রীতি মতন ট্রেনের চাকার তলাতেই চলে যাচ্ছিলেন। শেষমেষ কোনভাবে তিনি ট্রেনে উঠে যান এবং কোন দুর্ঘটনা ঘটে না। ওই যুবক এই দৃশ্যটি ভিডিওতে দেখানোর পর নিজেও এরকম ধরনের কোন কাজ না করার জন্য বারবার সকলের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছেন।

চলন্ত ট্রেনের মধ্যে এভাবে উঠতে গিয়ে কোনরকম ভাবে পা ফসকে গেলে যে কত বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে সেটা সম্পর্কে ধারণা থাকা সত্ত্বেও আমাদের আশেপাশের প্রায় প্রতিটি স্টেশনেই কিন্তু এই দৃশ্যের সম্মুখীন আমরা প্রায় হয়ে থাকি। আসলে মানুষ তাড়াহুড়া বা হুজুকের বসে এই কাজটি করে থাকেন কিন্তু পরে আফসোস করেন।

আজকের এই প্রতিবেদনের শেষে আমরা তাই সকল পাঠকদের বার্তা দেবো যে কখনোই ভুল করেও তাড়াহুড়া থাকা সত্ত্বেও আপনারা এই কাজটি করবেন না। নিজের এবং পরিবারের কথা মাথায় রেখে এই ধরনের কর্মকাণ্ড করা থেকে বিরত থাকুন।VS MONU VLOGS নামের ইউটিউব চ্যানেল থেকে শেয়ার করে এই ভিডিওটি প্রায় ৮ মিলিয়ন এর কাছাকাছি মানুষ এখনো পর্যন্ত দেখে নিয়েছেন। রইল সেই ভিডিও।

Back to top button