প্রচণ্ড গরমেও রান্নাঘর থাকবে একদম ঠাণ্ডা! শুধুমাত্র ট্রাই করুন এই দুর্দান্ত ঘরোয়া ট্রিকস!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- গরমের দিনে যে সমস্ত গৃহিণীরা রান্নাঘরে ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে কাজ করে যান তাদের কিন্তু বেশ অসুবিধার মুখোমুখি হতে হয়। এই সমস্ত কারণে কিন্তু অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন বা নানান ধরনের শারীরিক সমস্যা দেখা যায়। যেখানে ঘরের ভেতরেই ফ্যান বা এসি ছাড়া থাকা যায় না সেখানে রান্নাঘরে ঘন্টার পর ঘন্টা কতটা কষ্ট হতে পারে একবার ভাবুন তো!

বিশেষ করে কারোর রান্নাঘর যদি ছোট এবং কম বাতাস যুক্ত হয় তাহলে তো আর কথাই নেই। এই বিশেষ প্রতিবেদনে তাই গৃহিণীদের সমস্যা দূর করতে আমরা আলোচনা করে নিতে চলেছি বিশেষ কয়েকটি টিপস যাতে আপনারা গরমের দিনগুলিতে খুব সহজেই রান্নাঘর ঠান্ডা রাখতে পারবেন। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

  • প্রবল গরমের সময় রান্নাঘর ঠান্ডা রাখার বিশেষ কয়েকটি উপায়:

১) রান্নার সময় নির্ধারণ:

গরমকালে কিন্তু আপনাদের অবশ্যই রান্নার একটি নির্দিষ্ট সময় বেছে নিতে হবে। যদি আপনারা দুপুরের দিকে রান্না ঘরে কাজ করেন তাহলে কিন্তু খুবই কষ্ট হবে কারণ এই সময় তাপমাত্রা অনেকটাই বেশি পরিমাণে থাকে। তাই অবশ্যই চেষ্টা করবেন একেবারে সকাল সকাল দুপুরের খাবার তৈরি করে নেওয়ার। সেই সময় যেহেতু খুব একটা তাপমাত্রা থাকে না তাই কষ্ট অনেকটা কম হবে। দুপুরে খাওয়ার আগে একবার চটজলদি খাবার গরম করে নিলেই কিন্তু আর সমস্যা হবে না।

২) বায়ুচলাচলের ব্যবস্থা:

রান্নাঘর ছোট হোক বা বড় সেখানে যাতে যথেষ্ট পরিমাণে বায়ু চলাচল করতে পারে এই ব্যাপারে কিন্তু আপনাদের অবশ্যই নজর দিতে হবে। তুমুল গরমে রান্না করতে গিয়ে কিন্তু আপনাদের নয় তো শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যা দেখা দিতে পারে। সব সময় রান্নাঘরে থাকা জানলা খোলা রাখার চেষ্টা করবেন এবং রান্নাঘরে বৈদ্যুতিক ফায়ারপ্লেস ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে কিন্তু রান্নাঘরে থাকা অতিরিক্ত তাপ সহজেই বাইরে বেরিয়ে যাবে এবং আপনার কিচেন থাকবে ঠান্ডা।

৩) প্রেসার কুকার এর ব্যবহার:

গরমকালে চেষ্টা করুন যে সমস্ত রান্না প্রেসার কুকারে করা যেতে পারে সেগুলি সেখানেই করার। প্রসঙ্গত প্রেসার কুকারে রান্না করতে গেলে কিন্তু সময় অনেকটাই কম লাগে যে কারণে আপনাদেরকে খুব বেশি সময় রান্নাঘরে বসে থাকতে হবে না। এটা কিন্তু একটা খুবই কার্যকরী টিপস।

৪) যতটা সম্ভব স্মার্ট রান্নার যন্ত্রপাতির প্রয়োগ:

যাতে তাড়াতাড়ি যে কোন খাবার তৈরি করা যায় তার জন্য কিন্তু আপনারা স্মার্ট যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে পারেন। এই স্মার্ট যন্ত্রপাতির তালিকায় রয়েছে টোস্টার, গ্রিল, বৈদ্যুতিক কুকার ইত্যাদি।এগুলোতে রান্না করার সুবিধা হল টাইমার দিয়েই আপনি রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে একটু ফ্যানের হাওয়া খেয়ে আসতে পারেন। যেহেতু গ্যাসের আঁচ এটাতে খুব একটা লাগবে না তাই রান্নাঘর কিন্তু সবিশেষ গরম হবে না এগুলি ব্যবহার করলে।

৫) ইন্ডাকশন ওভেন ব্যবহার:

যদি আপনারা বিভিন্ন রান্না করার কাজে ইন্ডাকশান ওভেন ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনাদের রান্নাঘর খুব একটা গরম হবে না। গ্যাসের মধ্যে যেহেতু আগুন জ্বালানো হয় তাই সেই তাপে রান্নাঘর গরম কালে অতিরিক্ত বেশি রকমের গরম হয়ে গিয়ে থাকে। ইন্ডাকশন অ্যাপ্লায়েন্স থেকে কম তাপ নির্গত হয়, যার কারণে রান্নাঘর গরম হয় না। এই ওভেনে রান্না করার কিন্তু অনেক ধরনের সুবিধা রয়েছে। সুতরাং আপনারা অবশ্যই এই পদ্ধতি ট্রাই করে দেখবেন।

৭) রান্নাঘরের আলো যতটা সম্ভব বন্ধ রাখা:

মাথায় রাখবেন যে অতিরিক্ত আলো কিন্তু তাপ উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। তাই প্রয়োজন ছাড়া রান্না ঘরে আপনারা আলোর ব্যবহার কিন্তু খুব বেশি করবেন না। দিনের বেলায় জানলা খোলা রাখলেই যেমন বাতাস চলাচল করবে ঠিক তেমনভাবেই কিন্তু রান্না করার জন্য আপনারা প্রয়োজনীয় প্রাকৃতিক আলো পেয়ে যাবেন। সুতরাং এই সময় লাইট অন করার একেবারেই প্রয়োজন নেই। অতিরিক্ত লাইট জ্বালিয়ে রাখলে কিন্তু বিদ্যুতের খরচ অনেকটা বেড়ে যাবে সুতরাং এটা শুধুমাত্র আপনাদেরকে রান্নাঘর ঠান্ডা রাখতেই নয় বিদ্যুতের বিল বাঁচাতেও সাহায্য করবে।

Back to top button