শীতের ঠাণ্ডায় পা ফাটার সমস্যায় ভুগছেন! ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি এই ক্রিম লাগান রোজ, মাত্র ৩দিনেই পা ফাটা হবে বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতকালের একটি অন্যতম সমস্যার মধ্যে রয়েছে পা ফাটার সমস্যা। কমবেশি বাচ্চা থেকে বড় সকলেই এই সমস্যার ভুক্তভোগী। বাজার চলতি নানান ধরনের উপকরণ এই সমস্যা দূর করার জন্য ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাতে কোন কাজ হয় না। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করে নিতে চলেছি মাত্র তিন দিনের মধ্যে পা ফাটা বন্ধ করার একটি চ্যালেঞ্জিং রেমেডি। সাধারণ ঘরোয়া উপকরণ দিয়েই এগুলো তৈরি করা হবে। চলুন কিভাবে কি করতে হবে সেই প্রসঙ্গে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

১) প্রথম পদ্ধতিতে আপনাদের একটা মিডিয়াম সাইজের পেঁয়াজ নিয়ে নিতে হবে। তারপর গ্রেটারের সাহায্যে গ্রেট করে পেঁয়াজ থেকে আপনাদের জুস বের করে নিতে হবে। এই পেঁয়াজের রসটাকে একটা অন্য পাত্রে সংগ্রহ করে নিন এবং তাতে সামান্য পরিমাণ চিনি আর লেবুর রস মিশিয়ে ফেলুন। এই দুটি উপকরণ মিশিয়ে নিলেই দেখবেন পেঁয়াজের রসের কালার বেগুনি হয়ে গিয়েছে। তারপর এতে হাফ চা চামচ বেকিং সোডা যোগ করুন।

যদি আপনাদের কাছে বেকিং সোডা না থাকে সে ক্ষেত্রে ইনো ব্যবহার করতে পারেন। বেকিং সোডা যোগ করলেই দেখবেন ফেনা তৈরি হয়ে গেছে তখন আবারো চামচের সাহায্যে সমস্ত উপকরণ মিশিয়ে দিতে হবে। তারপর হোয়াইট কোলগেট টুথপেস্ট যোগ করে ভালো করে নাড়াচাড়া করে এটাকে একটা কাঁচের ছোট কন্টেনারে ধরে নিন এবং ফ্রিজে রেখে খুব সহজেই ১৫ দিন থেকে এক মাস পর্যন্ত ব্যবহার করুন।।স্নান করার আগে লিকুইড এই ক্রিম পায়ে খুব ভালোভাবে ম্যাসাজ করে নেবেন। তারপর হালকা গরম জল দিয়ে পা ভালো করে ধুয়ে নেবেন দেখবেন কয়েক দিনের মধ্যেই সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে যাচ্ছে।

২) দ্বিতীয় পদ্ধতিতে আপনাদের নিয়ে নিতে হবে কয়েকটা মোমবাতি। এটা কেউ গ্রেটারের সাহায্যে গ্রেট করে নিন। মোমবাতি গ্রেট করা হয়ে গেলে এগুলোকে একটা অন্য জায়গায় তুলে রেখে দুটো ন্যাপথলিন নিয়ে নিন। এটা কেউ ঠিক একই রকম ভাবে গ্রেট করে নিতে হবে। এবার গ্যাসে একটা পাত্রে জল বসিয়ে যতক্ষণ না সেটা ফুটে যাচ্ছে অপেক্ষা করুন।

তারপর সেটার উপরে একটা স্টিলের বাটি বসিয়ে মোমবাতির গ্রেট করা অংশ নিয়ে গলিয়ে নিন। মোমবাতি গলে গেলে এর মধ্যে আপনাদের চায়ের কাপের এক কাপ পরিমাণ সরষের তেল যোগ করতে হবে। এবার সর্ষের তেলের সাথে ভালোভাবে মোমবাতি মিশে গেলে আপনাদের এটাকে নামিয়ে ন্যাপথলিনের গুরতে যোগ করে দিতে হবে। এবার একটা কাঁচের কন্টেনার ব্যবহার করে এই মিশ্রণটা কেউ সেট করে ফ্রিজে রেখে দিন। ঠিক আগের পদ্ধতিতেই কিন্তু এটা ফাটা পায়ে ব্যবহার করতে হবে।

৩) তৃতীয় পদ্ধতিতে আপনাদের এক টেবিল চামচ ভেসলিন পেট্রোলিয়াম জেলি আর সামান্য পরিমাণে অ্যালোভেরা জেল প্রথমেই একটা পাত্রে নিয়ে নিতে হবে। আপনারা বাড়িতে থাকা পাতার জেল অথবা বাজার থেকে কিনে আনা এলোভেরা জেলও এই কাজে ব্যবহার করতে পারেন। সবশেষে এরমধ্যে কয়েক ফোটা গ্লিসারিন যোগ করে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এই জেলটা কেও একটা কৌটোর মধ্যে ঢুকিয়ে আপনাদের ফ্রিজে সংরক্ষণ করতে হবে। ব্যাস তৈরি হয়ে গেল পা ফাটা দূরীকরণে আমাদের তৃতীয় রেমেডি।

৪) চলে আসা যাক আজকের প্রতিবেদনের শেষ টিপসে। এই পদ্ধতিতেও আপনাকে একটা মোমবাতি নিয়ে নিতে হবে প্রথমে। এই মোমবাতির মধ্যে কিছুটা পরিমাণ সরষের তেল আর ভেসলিন যোগ করে দিতে পারেন। আর সবশেষে নারকেল তেল যোগ করে এটি নিয়ে চলে যাবেন গ্যাসে । ডবল বয়লার সিস্টেমে সমস্ত উপকরণগুলোকে গলিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে মিশিয়ে নেবেন। তারপর যেকোনো কাচের বা প্লাস্টিকের কন্টেনারে এটাকে সেট করে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিলেই কিন্তু তৈরি হয়ে যাবে আজকে চতুর্থ। কোন টিপসটি আপনাদের সবথেকে বেশি ভালো লাগলো তা অবশ্যই জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button