নারীদের মধ্যে যে লক্ষনটি থাকলে যমজ সন্তান হওয়ার প্রবণতা 90% থাকে, এটি পরীক্ষিত ও প্রমানিত!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- যমজ সন্তান আমাদের প্রত্যেকের ভালো লাগে । তার পাশাপাশি এই সন্তান সম্পর্কে থাকে আমাদের চিরকালীন একটা কৌতুহল। কিন্তু সমীক্ষা বলছে প্রতিনিয়ত বাড়ছে যমজ সন্তান ধারণের প্রবণতা । একদম ঠিক শুনেছেন । সম্প্রতি একটি সমীক্ষা থেকে উঠে এসেছে যে ১৯৮০ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে যমজ সন্তান ভূমিষ্ঠ হবার পরিমাণ বেড়েছে ৭৬% একদমই ঠিক শুনেছেন ।

অর্থাৎ ১৯৮০ সালে ৫৩ জন সন্তানের মধ্যে একজন যমজ সন্তান হতো । সেটি বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৩০ জন অর্থাৎ ৩০ জন সন্তানের মধ্যে একজন যমজ সন্তান হয় । কিন্তু যে প্রশ্নটা বারবার ঘুরেফিরে থেকে যাচ্ছে সেটি হল যমজ সন্তান কিভাবে হয় । কোন কিছুর উপর নির্ভর করে এটি? এই সংক্রান্ত বিভিন্ন গবেষণা চালিয়েছে বিভিন্ন গবেষকরা এবং সে গবেষণা থেকে উঠে আসা তথ্য অনুসারে এমনটা বলা যেতেই পারে যে যমজ সন্তান ধারণের জন্য মেয়েদের উচ্চতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ।

একদম ঠিক শুনেছেন । বেশি উচ্চতা সম্পন্ন মহিলারা যমজ সন্তান ধারণ করার ক্ষমতা রাখে অন্যান্য মহিলাদের তুলনায় এবং সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সমস্ত মহিলা যমজ সন্তান হয়েছে তাদের উচ্চতা অন্যান্য মহিলাদের তুলনায় বেশি । গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, মায়ের উচ্চতার সঙ্গে যমজ সন্তান জন্মদানের সম্পর্ক রয়েছে। কারণ আমাদের শরীরের বেড়ে ওঠার জন্য কিছু বিশেষ বিষয় কাজ করে। যাকে বলা হয় গ্রোথ-ফ্যাক্টর।

যা হচ্ছে ইনসুলিন নামের এক বিশেষ ধরণের প্রোটিন।এই ইনসুলিন বোন সেল বৃদ্ধিকে তরান্বিত করে। একই সঙ্গে মেয়েদের লম্বা হবার প্রবণতা ও যমজ সন্তান জন্মদানের বিষয়টিকে নিয়ন্ত্রণ করে। অতএব যে প্রশ্ন এতদিন সাধারণ মানুষের মনে ঘোরাফেরা করছিল সেই প্রশ্নের উত্তর জানতে পেরে রীতিমতো খুশি অনেকেই । তার পাশাপাশি অনেকে এই সমীক্ষা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল থেকে জ্ঞান অর্জন করতে পেরেছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button