জেনে নিন সমবয়সী ছেলে-মেয়ে বিয়ে করলে ভবিষ্যতে কি ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন! রইল বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের মধ্যে অর্থাৎ বর্তমান প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের মধ্যে সমবয়সী সাথে বিয়ে করার প্রবণতা বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে । আগেকার যুগের স্বামীর বয়স স্ত্রীর তুলনায় দ্বিগুণ হওয়াটা অস্বাভাবিক ঘটনা ছিল না । বরং সেদিকে মানুষ ভালোচোখে দেখতো । কিন্তু যত দিন যাচ্ছে তত কমছে বয়সের প্রবণতা। অর্থাৎ বর্তমান প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা সমবয়সী ছেলে মেয়েদেরকে বিয়ে করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছে ।

প্রাথমিক দৃষ্টিতে দেখতে গেলে মানসিক মিল থাকলেও পরবর্তী ক্ষেত্রে দেখা যায় একাধিক সমস্যা এবং সেই সমস্ত স-মস্যা গু-লি নিয়ে আজকের প্রতিবেদনটি যার ফলে এই প্রতিবেদন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সকল প্রাপ্তবয়স্ক এবং তরুণ প্রজন্ম ছেলেদের কাছে । যদি কোন কারনে মেয়ের বয়স বেশি হয় ছেলের তুলনায় তাহলে সেই পুরুষ সে মহিলার কাছে ভাতৃ সম হয়ে ওঠে । শারীরিক দিক থেকে বা মানসিক দিক থেকে ।

তার পাশাপাশি যদি উল্টোটা হয় অর্থাৎ পুরুষের বয়স যদি বেশি হয় সে ক্ষেত্রে চলে তা দাদাগিরি । সংসারের যাবতীয় সিদ্ধান্তে তার অধিকার থাকে সব থেকে বেশি । যার ফলে মনোমালিন্য শুরু হয় । কিন্তু যদি সমবয়সী ছেলে মেয়েরা বিয়ে করে তাহলে প্রাথমিক দৃষ্টিতে তাদের মানসিকতা মিল থাকে প্রচন্ড পরিমানে । বয়স বাড়ার সাথে সাথে কমতে থাকে সেই সমস্ত বিষয়ের প্রবণতা ।

এর পাশাপাশি সমবয়সী ছেলে মেয়েরা যদি একে অপরকে বিয়ে করে তাহলে ৪০ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে এক চরম সমস্যা দেখা যায় । কারণ সেই সময় নারীদের মানসিক পরিবর্তন ঘটে । সন্তান ধারণ করার পর থেকে একাধিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় । ঠিক একই বয়সে পুরুষ তখন উজ্জ্বল তারুণ্য । যার ফলে স্ত্রীর মনে হয় যে তার স্বামীকে দেওয়ার মতন কিছুই নেই তার কাছে । অপরদিকে নিরলস জীবন কাটে শুরু করে সেই সমস্ত পুরুষের । যার ফলে মা-নসিক অ-শান্তি পারিবারিক অ-শান্তি এবং ডি-ভোর্সের ঘটনা লক্ষ্য করা যায় ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button