বাড়ির ছাদে বা উঠোনে এই সহজ উপায়ে লাগান পদ্ম গাছ, কয়েকদিনের মধ্যেই গাছ জুড়ে আসবে প্রচুর ফুল

নিজস্ব প্রতিবেদন: পদ্ম এমন একটি ফুল যা পূজোর কাছ থেকে শুরু করে অনেক ক্ষেত্রেই কিন্তু প্রয়োজন হয়ে থাকে। সাধারণত দুই ধরনের পদ্ম দেখা যায় জল পদ্ম এবং স্থলপদ্ম। আজ আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করে নেব কিভাবে অল্প পরিচর্যার মধ্যেই বাড়িতে তবে পদ্মফুলের চাষ করা যেতে পারে বা গাছ বড় করে তোলা যেতে পারে। যদি আপনারাও এই পদ্ধতিতে বাড়িতে পদ্ম গাছ বড় করতে চান সে ক্ষেত্রে আমাদের প্রতিবেদনটি একেবারে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ে ফেলুন।। পাশাপাশি এই প্রতিবেদনে আপনারা কিন্তু গাছের কুড়ি না আসার সমস্যা থেকে শুরু করে আরো বেশ কিছু দিকের সমাধান জানতে পারবেন।

মাটি তৈরি এবং চারা রোপন:
টবে পদ্ম গাছ করার জন্য আপনাদের যে সমস্ত জিনিসগুলো প্রয়োজন হবে তা হল পদ্মের চারা, বড় গামলা,পাক বা মাটি, কয়েকটি সার এবং ছত্রাকনাশক। চেষ্টা করবেন পদ্ম গাছ করার জন্য বড় গামলা জাতীয় টব ব্যবহার করার। যদি আপনি পুকুরের মাটি বা পাকের মাটি ব্যবহার করেন তাহলে তাতে সরাসরি গাছ বসিয়ে দিতে পারবেন। তবে বাগানের বাটি ব্যবহার করলে সঙ্গে ভার্মিং কম্পোস্ট ব্যবহার করতে হবে। মাটির সাথে ভার্নিং কম্পোস্ট সম্পূর্ণ না মিশিয়ে প্রথম সাত ভাগ মাটি এবং তিন ভাগ জল দিয়ে দেবেন আগে। শুধুমাত্র নিচের একভাগ থাকবে ভার্মিং কম্পোস্ট। ভালোভাবে টবে জল দিয়ে দিন। এক সপ্তাহ বাদে আপনারা ওই টবের মধ্যেই চারা গাছ বা টিউব বসিয়ে দেবেন।।

সার প্রয়োগ:
পদ্ম গাছের সার প্রয়োগ করারও কিন্তু কিছু বিশেষ নিয়ম রয়েছে। গাছ বসানোর কিছুদিন পর যখন পাঁচ থেকে ছয়খানা ভাসমান পাতা আপনি দেখতে পারবেন, তখন থেকেই আপনাকে পদ্ম গাছে খাবার দেওয়া শুরু করতে হবে। দুটি ছোট সাইজের কাগজ নিয়ে তার মধ্যে এনপিকে নিয়ে নিন এবং কাগজটাকে মুড়ে গাছের গোড়ায় কোন জায়গায় পুঁতে দিন। তাহলেই ফলাফল দেখতে পারবেন।

যদি কোন কারনে গাছে ঠিকঠাক ফুল না আসে বা অন্য সমস্যা হয়। মনে রাখবেন পদ্ম গাছে কিন্তু ছয় থেকে আট ঘণ্টা সময় পর্যন্ত সূর্যালোক প্রয়োজন। ফুল না আসার সমস্যা দূর করার জন্য আপনারা খাবারের পরিবর্তন করতে পারেন। এর জন্য ঠিক একই রকম ভাবে কাগজে 0-52-24 Npk ভরে পাত্রের চারপাশের মাটিতে আপনাকে পুঁতে দিতে হবে। প্রতি 15 দিন অন্তর আপনাকে এই কাজটি করতে হবে। যতদিন না গাছে কুঁড়ি আসছে এই কাজটি করলেই দেখবেন কিছুদিনের মধ্যে গোটা গাছটাই ফুলে ভরে উঠবে। গাছপালা সংক্রান্ত এ ধরনের আরও টিপস পেতে চাইলে আমাদের অন্যান্য প্রতিবেদন গুলির উপর নজর রাখতে থাকুন।

Back to top button