ভিটামিন ই ক্যাপসুল – এইভাবে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহার করে দেখুন চুলের গ্রোথ আর কোন দিনও বন্ধ হবে না, রইল পদ্ধতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমাদের সৌন্দর্য তা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে চুল এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা বা অবদান রাখে । আমরা প্রত্যেকেই জানি চুল বিহীন মানুষ ঠিক কতটা হতাশার মধ্যে থাকে । বর্তমান যুগে অধিকাংশ ছেলে মেয়েদের কম চুল এর প্রবণতা বা টাক পড়ে যাওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায় । তার জন্য থাকে একাধিক কারণ । অনিয়মিত জীবনযাত্রা একাধিক পরিমাণে মদ্যপান বা বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করার জন্য এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে । কিন্তু যদি আপনি শুরুতেই এর সমাধান খুঁজে বের করেন তাহলে কিন্তু পুনরায় ঘন কালো চুলের অধিকারী হতে পারেন আপনি।

ঘন কালো চুলের অধিকারী হওয়ার জন্য চুলের চর্চা করা অত্যন্ত জরুরি । এবং চুলের চর্চা করার জন্য ভিটামিন ই ক্যাপসুল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । অনেকেই হয়তো জানেন না যে ভিটামিন ই ক্যাপসুল কিভাবে ব্যবহার করেন ।তাই আজকের এই প্রতিবেদনে আপনাদের সামনে বলব সঠিক পদ্ধতি । অর্থাৎ যেভাবে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহার করলে আপনার চুলের গ্রোথ অত্যাধিক মাত্রা বেড়ে যাবে ।তার পাশাপাশি চুল ঘন ও কালো আসুন দেখেনি সেই পদ্ধতিটি কি। ঘন কালো চুলের জন্য ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহার করা হয় ।

এবার এটিকে ব্যবহার করার পদ্ধতি রয়েছে বিশেষ উপায়ে । যেমন ধরুন প্রথমে আপনাকে ভিটামিন ই ক্যাপসুল নিতে হবে । সেটি আপনি যেকোন মেডিকেল স্টোর থেকে পেয়ে যাবেন । এই ভিটামিন ই ক্যাপসুল এর মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা চুলকে গোড়া থেকে মজবুত করে। এবং চুল পড়া বন্ধ করে । তার পাশাপাশি চুলের গ্রোথ নিয়ন্ত্রণ করে । এরপরে ভিটামিন ই ক্যাপসুল থেকে জেল বের করে নিতে হবে এবং সেটিকে রাখতে হবে একটি পাত্রে । এরপর তার মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে দুই চামচ নারকেল তেল দুই চামচ ক্যাস্টর অয়েল ।

এরপর এই উপকরণ গু-লি কে একটি চামচের সাহায্যে ভাল করে নাড়তে হবে । তারপর ডবল বয়লার পদ্ধতি অর্থাৎ প্রথমে আপনাকে একটি পাত্রে জল নিয়ে গরম করতে হবে । সে গরম জলের মধ্যে তেলের পাত্রটি রেখে দিতে হবে । তারপর দুই থেকে তিন মিনিট ঢেকে ভালো করে ফোটাতে হবে । এটি কে বলে ডবল বলার পদ্ধতি । এই পদ্ধতি অবলম্বন করে আপনি তেল গরম করে নিলেন তারপর ঠাণ্ডা করে অন্য একটি পাত্রে সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন প্রায় একমাস । এটি স্নান করতে যাওয়ার এক ঘন্টা আগে চুলের মধ্যে প্রয়োগ করুন ।তারপর শ্যাম্পু বা কন্ডিশনার দিয়ে ধুয়ে ফেলুন । এক মাস ধরে পদ্ধতি অবলম্বন করলে আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button