হুবহু যেন বাবার আদলে তৈরী মুখশ্রী! যেকোনো সুন্দরী টলি নায়িকা মানবে হার, দেখুন তাপস পালের কন্যা সোহিনীর ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন: টলিউড ইন্ডাস্ট্রির ৯০ এর দশকের জনপ্রিয় অভিনেতা বলতেই যার নাম সর্বপ্রথমে মাথায় আসে তিনি হলেন তাপস পাল। সময়ের ফের তাকে ইন্ডাস্ট্রি থেকে দূরে সরিয়ে দিলেও একের পর এক সুপারহিট চলচ্চিত্র একটা সময় দর্শকদের উপহার দিয়েছেন তিনি। যদিও শেষ পর্যন্ত ২০২০ সালের ১৮ই ফেব্রুয়ারি নিজের শেষ ছবি বাঁশি অসমাপ্ত রেখেই চলে যেতে হয় তাকে।

তাপস পাল অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ছিল দাদার কীর্তি। এতে অভিনয়ের পর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। নায়কের ভূমিকায় তাকে ইন্ডাস্ট্রি এত তাড়াতাড়ি গ্রহণ করে নিয়েছিল যে দর্শকেরা তার ছবির জন্য মুখিয়ে বসে থাকতেন। অভিনয় জীবনের মাঝ পথেই সক্রিয় রাজনীতিতে নাম লিখিয়েছিলেন তাপস পাল। আর এই রাজনীতিই কিছুটা কাল হয়েছিল তার জন্য।

ব্যক্তিগত জীবনে নন্দিনী পালকে বিয়ে করেছিলেন এই অভিনেতা। স্ত্রী সন্তান নিয়ে সুখের সংসার ছিল তার। এই দম্পতির একমাত্র মেয়ের নাম সোহিনী পাল। বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে তার একমাত্র মেয়ে সোহিনী ও অভিনয় জগতেই নাম লিখিয়েছেন।২০০৪ সালে অঞ্জন দত্তের ‘বউ ব্যারাক্স ফরএভার’ এ প্রথমবার অভিনয় করেছিলেন তাপস কন্যা সোহিনী। এরপর কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত জ্যাকপট ছবিতে দেখা যায় তাকে।যদিও খুব বেশিদিন টলিউডে অভিনয় করেননি তিনি।

আচমকাই মাঝপথে বলিউডের উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছিলেন তাপস তনয়া। ২০১৫ সালের সোহিনী অভিনীত প্রথম হিন্দি ছবি মুক্তি পায় যার নাম ‘হাম তুম দুশমন দুশমন’। এই ছবিতে সোহিনীর বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন অভিনেতা মুকেশ ঋষি। শুধুমাত্র সিনেমা নয় ধারাবাহিক ও একটা সময় অভিনয় করেছিলেন সোহিনী। বড় পর্দার পাশাপাশি ছোট পর্দার দর্শকেরাও তার এই অভিনয়কে বেশ পছন্দ করেছেন।

‘আপকে আজানে সে’ নামের একটি ধারাবাহিকে দেখা গিয়েছিল তাকে। বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল এটি। বিভিন্ন সূত্র অনুযায়ী জানা যায় মেয়ের সঙ্গে অনেকটা বন্ধুর মতন সম্পর্ক ছিল অভিনেতা তাপস পালের। জীবিত অবস্থায় মুম্বাইতে মেয়ের কাছে এসেও বেশ কিছুদিন ছিলেন তাপস পাল। একবার এক সাক্ষাৎকারে প্রয়াত অভিনেতা জানিয়েছিলেন, “পাখির মত মেয়ে আমার, টুকটুক করে কথা বলে”। যদিও শেষ পর্যন্ত স্ত্রী এবং একমাত্র সন্তানকে রেখে অকালেই চলে যেতে হয় তাকে। মেয়ের সাফল্য আর সম্পূর্ণরূপে দেখে যেতে পারেননি অভিনেতা।

Back to top button