একেবারে কম তেল মশলা দিয়ে বাড়িতেই খুব সহজ এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানান ফুলকপি ভর্তা, স্বাদ লেগে থাকবে মুখে

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতকালীন সবজি হিসেবে আমরা সবার প্রথমেই কিন্তু ফুলকপির কথা উল্লেখ করতে পারি। এই সময় ফুলকপি দিয়ে নানান ধরনের রেসিপি তৈরি করে খাওয়া হয়ে থাকে। লক্ষ্য করে দেখবেন সর্বদা একঘেয়ে রেসিপি খেতে খেতে আমাদের মুখের স্বাদের অনেকটাই পরিবর্তন হয়ে যায় এবং খাবারে একপ্রকার অনিহা চলে আসে। এই সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য অবশ্যই মাঝে মাঝে একটু নিত্যনতুন খাবার ট্রাই করা ভীষণভাবে প্রয়োজন।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে তাই আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করে নিতে চলেছি ফুলকপির ভর্তার একটি ইউনিক রেসিপি। যারা এই রেসিপিটি বানাতে জানেন না তারা অবশ্যই আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনটা মনোযোগ সহকারে পড়ুন এবং অসাধারণ রেসিপিটি তৈরির পদ্ধতি শিখে নিন।। ফুলকপির ভর্তা বানানো কিন্তু ভীষণ সোজা এবং খুব একটা সময়ও এতে লাগেনা।

ফুলকপির ভর্তা বানানোর জন্য প্রথমে একটা বড় সাইজের ফুলকপি নিয়ে নিতে হবে এবং তার পেছনের ডাটি কেটে নিতে হবে। এরপর বেশ কয়েকবার ভালো করে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তারপর একটা বড় পাত্রের মধ্যে বেশ কিছুটা পরিমাণ জল আর সামান্য পরিমাণ নুন দিয়ে নিন। এরপর ভালো করে হাইফ্লেমে জলটাকে ফুটিয়ে নিয়ে তার মধ্যে ফুলকপিটাকে দিয়ে দিতে হবে এবং গ্যাসের আঁচ মিডিয়ামে রেখে মিনিটখানেক সময় এটাকে ফুটাতে হবে।

কপির মধ্যে অনেক সময় নানান ধরনের পোকামাকড় থাকে। গরম জলে একটু ডুবিয়ে রাখলে কিন্তু সেই পোকামাকড় গুলো চলে যাবে। তারপর গরম জল থেকে ফুলকপিটাকে তুলে নিয়ে অতিরিক্ত জল ঝরিয়ে কপিটাকে কিছুক্ষণ গ্যাসের উপরে একটা জালি বসিয়ে পুড়িয়ে ফেলুন। পোড়ানোর সময় গ্যাসের ফ্ল্যেম কিন্তু একেবারে বাড়িয়ে রাখবেন।যদি এই কাজটা আপনারা উনুনের আগুনে করতে পারেন তাহলে তো খুবই ভালো হয় কারণ উনুনের আগুনে তৈরি জিনিস খেতে ভালো লাগে।

ভালো করে পুড়িয়ে নেওয়া হয়ে গেলে এই ফুলকপিটাকে একটা আলাদা প্লেটের মধ্যে রেখে কিছুক্ষণ ঠান্ডা করে নিন। তারপর একটা ছুরির সাহায্যে ছোট টুকরো করে কেটে ফেলুন। কেটে নেওয়া হয়ে গেলে একটা গ্রেটারের সাহায্যে কপিটাকে গ্রেট করে ফেলুন। ভর্তা বানানোর জন্য একটা করায় বসিয়ে তাতে ২ টেবিল চামচ পরিমাণ সাদা তেল দিয়ে দিন। তেল গরম হয়ে গেলে হাফ চা চামচ গোটা জিরে ফোড়ন দিয়ে ফেলুন।

এবার তিনটে কুচিয়ে নেওয়া কাঁচা লঙ্কা এবং কয়েকটি টমেটোর টুকরো যোগ করুন। লো টু মিডিয়াম ফ্লেমে এবার আপনাদের টমেটো টা কে একটু ভেজে নিতে হবে। চাইলে আপনারা কিন্তু পেঁয়াজ দিতে পারেন। সামান্য পরিমাণ লবণ যোগ করে আবারো টমেটো টাকে নাড়াচাড়া করুন যাতে এটা নরম হয়ে যায়।

টমেটো একটু নরম হয়ে আসলে এর মধ্যে এক চা চামচ পরিমাণের জিরা গুঁড়ো, একটা চামচ পরিমাণে হলুদ গুঁড়ো এবং হাফ চা চামচ পরিমাণে কাশ্মিরি লঙ্কার গুড়ো যোগ করে দিন। গুঁড়ো মসলা যোগ করার পরে লো ফ্লেমে আবারো একবার মিনিট দুয়েক এই রান্নাটিকে কষিয়ে নিতে হবে। এই সময়ে জলের ব্যবহার কিন্তু করার দরকার নেই প্রয়োজন ছাড়া।

মসলা দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নেওয়া হয়ে গেলে গ্রেট করে রাখা ফুলকপিটাকে এর মধ্যে দিয়ে দিন। মসলার সাথে এবার ফুলকপিটাকে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। এবার সামান্য পরিমাণ জল দিয়ে ঢাকা দিয়ে দিন যাতে কপিটা ভালোভাবে সেদ্ধ হয়ে যায়। এই সময় আপনাদের তিনটে শুকনো লঙ্কা গ্যাসে পুড়িয়ে নিতে হবে। শুকনো লঙ্কা যদি ফুলকপির ভর্তা তে ব্যবহার করা হয় তাহলে কিন্তু দারুণ একটা গন্ধ হয় এবং খেতেও ভালো লাগে।

এবার ঢাকনা খুলে ফুলকপির ভর্তার মধ্যে শুকনো লঙ্কা পোড়াগুলো হাত দিয়ে গুঁড়ো করে দিয়ে দিন। সামান্য পরিমাণে ধনেপাতার কুচি ছড়িয়ে একটু নাড়াচাড়া করে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে ফুলকপির ভর্তা। রেসিপিটি গরম ভাতের সাথে খেতে কেমন লাগলো তা কিন্তু অবশ্যই আমাদের কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button