মহাগুরুর ছেলে হয়েও জুটছে না কাজ! পরিচালকদের কাছে করতে হচ্ছে ভিক্ষা, জানেন কেমন আছেন এখন মিমো চক্রবর্তী?

নিজস্ব প্রতিবেদন: টলিউড থেকে শুরু করে বলিউড যিনি অল্প সময়ের মধ্যেই কোনরকম গডফাদার ছাড়া নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তিনি হলেন মিঠুন চক্রবর্তী। একটা সময় ইন্ডাস্ট্রিকে ব্যাক টু ব্যাক সুপারহিট ছবি দিয়েছেন মিঠুন। নাচ থেকে শুরু করে রোমান্স সবকিছুতেই অভিনয়ের পাশাপাশি সমান পারদর্শী ছিলেন তিনি। মিঠুন চক্রবর্তীর ছবি আর সুপারহিট হবেনা এ কথা তো ভাবাও যায় না। তবে ইন্ডাস্ট্রিতে তার শুরুর দিকটা কিন্তু খুব একটা সহছ ছিল না।

পরপর একাধিক ছবিতে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে তাকে রিজেক্ট করেছিলেন পরিচালকরা। তবে তার পরেও থেমে থাকেননি মিঠুন। প্রতিনিয়ত তিনি নিজের লক্ষ্যে এগিয়ে গিয়েছেন এবং নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা চালিয়েছেন। সম্প্রতি মিঠুন চক্রবর্তীর মতনই এমন এক অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হচ্ছেন তার পুত্র মিমো চক্রবর্তী। জিমি ছবির মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রেখেছিলেন মিমো ‌। তবে তার এই প্রথম ছবিটি কিন্তু বক্স অফিসে খুব বেশি সাফল্য অর্জন করতে পারেনি।

যার দরুন বলতে গেলে শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছিলেন এই জনপ্রিয় অভিনেতার পুত্র। এই ছবি মুক্তির প্রায় 14 বছর কেটে গিয়েছে। তবে তার পরেও এত বড় অভিনেতার সন্তান হয়ে তাকে পরিচালকদের দরজায় ঘুরে কাজের জন্য কথা বলতে হয়। সব থেকে বড় ব্যাপার একজন স্টার কিড খাওয়ার পরেও ইন্ডাস্ট্রি কিন্তু তাকে অতিরিক্ত কোন সুবিধা দেয়নি। আজকালকার দিনে সেলিব্রিটিদের সন্তানরা যেভাবে নেট মাধ্যমে উঠে আসেন তার কোনটাই মিমো চক্রবর্তীর ক্ষেত্রে হয়নি।। এই প্রসঙ্গে একটা সাক্ষাৎকারে নিজেই মুখ খুলে ছিলেন মিঠুনপুত্র।

স্পষ্ট ভাষায় তিনি সেই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন,“সুপারস্টারের ছেলে হয়েও বলিউডে পা রাখাটা আমার জন্য সহজ ছিল না। জিমি আসার প্রায় ১৪ বছর হয়ে গেছে এবং এখনও আমি একজন অভিনেতা হিসাবে এখানে আমার জমি খুঁজছি। এত বছর ধরে আমার একটা ভিন্ন যুদ্ধ ছিল, যেটা আমি নিজের সঙ্গেই লড়ছিলাম। আমি প্রতিদিন নিজেকে বলতাম মিমো, তোমাকে ধৈর্য ধরতে হবে, কোন জাদু হবে না। সঠিক সময়ের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

সকলেই ভাবে আমি অভিনয়জগতে পরিবারের ছেলে আমার কাজ পেতে অসুবিধা হবে না, কিন্তু আসল খবর কেউ রাখে না। কিন্তু যত সময় লাগুক আমি অ্যাচিভ করেই ছাড়বো”। নিজের ছেলের প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে এতদা মিঠুন জানিয়েছিলেন,“মিমো, তোমার ছবি চলুক আর না চলুক, কিন্তু আমি গর্বিত যে তুমি নিজেই সেই ছবিগুলো অর্জন করেছ। বাবা হিসেবে বাবার কর্তব্য সবই করব, কিন্তু মিঠুন চক্রবর্তী তোমায় নায়ক বানাবে না। তোমায় নিজেই এটা উপার্জন করতে হবে।”

Back to top button