জবা ও নোবেলের বিয়ে নিয়ে এবার স্পষ্টভাবে মুখ খুললেন অভিনেত্রী জবা, একমত নোবেলও, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-এবার নোবেল এবং জবার বিয়ের সম্পর্কে মুখ খুললেন পল্লবী শর্মা । একদম ঠিক শুনেছেন ধারাবাহিক জগতে এক জনপ্রিয় ধারাবাহিক কে আপন কে পর যদি এই ধারাবাহিকটি প্রচার এখন সম্পূর্ণ রকম ভাবে বন্ধ হয়ে গেছে । অর্থাৎ অন্তিম পর্যায়ে শেষ হয়ে গিয়েছে । তাই ধারাবাহিকটি এখন আর তেমনভাবে হয়তো কারো মনে নেই । কিন্তু মনে থেকে গেছে জবার চরিত্র । কারণেই জবার চরিত্র প্রথম দিকে বেশ উত্তেজনা মূলক থাকলেও পরবর্তী ক্ষেত্রে কিন্তু হাসি এবং কৌতুকের শিকার হয়ে গিয়েছিলেন এই চরিত্রটি।

বেশ কয়েক মাস আগে সাইবার দুনিয়াতে একটি ছবি ব্যাপক পরিমাণে ভাইরাল হয়েছিল সেখানে দেখা গেছে যে বাংলাদেশের বিখ্যাত গায়ক নোবেল এর সাথে কে আপন কে পর ধারাবাহিকের জবার চরিত্র অভিনয় করা পল্লবী শর্মার বিয়ে হয়েছে । গলায় রয়েছে ফুলের মালা । বেনারসি শাড়ি পড়ে এবং পাঞ্জাবি পরা অবস্থায় দেখা গিয়েছিল নোবেল ও পল্লবী শর্মা কে । তারপর থেকে নেট দুনিয়াতে রীতিমতো সমালোচনার ঝড় বয়ে যায় ।কিন্তু পরবর্তীতে জানা যায় সেটি শুধুমাত্র এডিটিং করে তৈরি করা হয়েছে হাসি মজা করার জন্য ।তার পাশাপাশি দেখা গিয়েছিল যে জবার চরিত্র কিভাবে হাসির খোরাক হয়ে উঠেছিল।

জবা কাজের মেয়ে হিসেবে শুরু হয়েছিল তার যাত্রা নামিদামি পরিবারে তার বিয়ে হয়েছিল পরমের সাথে এবং তারপর পড়াশোনা শিখিয়ে জবা আইনজীবী তে পরিণত হয় । এতটা অব্দি গল্প সঠিক মাত্রায় চলল পরবর্তী ক্ষেত্রে দেখা যায় যে ঠান্ডা মাথায় জবা বোম্ব নিষ্ক্রিয় করতে পারছে । এমনকি ধর থেকে আলাদা হয়ে যাওয়া মাথাকে শুধুমাত্র একটা পাতলা ব্যান্ডেজ এর মাধ্যমে জবা জুড়ে দিতে পারছে । তাই সাধারণ মানুষ তাকে অ্যামিবা নামে আখ্যায়িত করেছিলেন ।।যার ফলে জবাকে কোন দিন মারা যাবে না বলে রব উঠে গিয়েছিলো ।

কিন্তু এই ধরনের হাসি মজার চরিত্র পল্লবী শর্মা কেমন লাগে ? পল্লবী জানিয়েছেন, তিনি একা থাকতে বেশি পছন্দ করেন। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন না তিনি। কিন্তু প্রতিবেশী ও বন্ধুবান্ধবদের কাছ থেকে তিনি জবার মিম ও ট্রোল সম্পর্কে জানতে পারেন। এমনকি যে নোবেলের সঙ্গে তাঁর মিম বানানো হয়েছে, তাকে তিনি চেনেন না। পল্লবীর কোনো আপত্তি নেই ‘জবা’ চরিত্রটি নিয়ে মিম বানানোয়। তাঁর মতে, ইদানিং ধারাবাহিকে নারী চরিত্র গুরুত্ব পায়। ফলে দর্শকদের সঙ্গে অনায়াসেই তাঁদের একটা সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ফলে হাসি-মজা হতেই পারে। তা নিয়ে ক্ষতি নেই। কারণ এর মাধ্যমেই সেই নারী চরিত্র দর্শকদের মনে বেঁচে থাকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button