রান্নাঘরের অর্ধেক খাটনি কমে যাবে সহজেই! জেনে রাখুন এই ১২টি দুর্দান্ত কার্যকরী কিচেন টিপস

নিজস্ব প্রতিবেদন: দৈনন্দিন আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই প্রচুর কাজ থাকে যা শেষ করতে গোটা দিনটাই পেরিয়ে যায়। বিশেষ করে যারা নতুন গৃহিণী রয়েছেন তাদের পক্ষে সকল দিক সমানভাবে সামলানো সম্ভব হয় না। কিন্তু নিজেদের কাজ সহজ করে তোলার জন্য আপনারা যদি কয়েকটি টিপস জেনে নেন সে ক্ষেত্রে কিন্তু আর ও প্রতিদিনের কাজ নিয়ে আপনাদেরকে ঝামেলায় পড়তে হবে না। আজ আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে চলে এসেছি ১২ টি কিচেন টিপস। অত্যন্ত কার্যকরী এই টিপসগুলো যেন আপনাদের কেমন লাগলো তা অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না।

১) রান্নার সময় তড়ি-তরকারিতে হলুদের পরিমাণ ভুল করে অনেকেরই বেশি হয়ে যায়। স্বাভাবিকভাবেই তখন রান্নার স্বাদে ব্যাপক পরিবর্তন দেখা দেয়। এটি ঠিক করার জন্য একটা স্টিলের খুন্তি নিয়ে ভালো করে গ্যাসে গরম করে নেবেন। তারপর ওই তরকারির মধ্যে কিছুক্ষণ খুন্তিটাকে ডুবিয়ে রাখবেন। কিছুক্ষণ পর ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে নিলেই দেখবেন রান্না হওয়ার তরকারি থেকে হলুদের অতিরিক্ত প্রভাব চলে গিয়েছে।

২) আমাদের অনেকেরই প্রধান খাদ্য হচ্ছে রুটি। তবে রুটি তৈরি করার সময় অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় তা ঠিকঠাক ফুলছে না এবং খেতেও সুস্বাদু হচ্ছে না। এই সমস্যার সমাধান হিসেবে আপনারা আটা বা ময়দা মাখার সময় বেশ কিছুটা রান্নার তেল এটাতে লাগিয়ে নিতে পারেন। তারপর কিছুক্ষণ রেস্টে রেখে রুটি তৈরি শুরু করবেন। স্টেপ বাই স্টেপ রুটি তৈরি করা হয়ে গেলে নিজেরাই দেখতে পারবেন এটা কত সুন্দর ভাবে ফুলছে।

৩) এমন বহু মাছ রয়েছে যার আশটে গন্ধের কারণে কিন্তু রান্নার সময় খুব বিরক্ত লাগে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে লবণ হলুদ দিয়ে মাছ ম্যারিনেট করার সময় যদি কয়েক ফোঁটা লেবুর রস দিয়ে দেওয়া যায় তাহলে কিন্তু দুর্গন্ধ চলে যাবে। আবার এই লেবুর রস কিন্তু মাছ ভাজার সময় তেলের হাত থেকে বাঁচাতেও আপনাদের সাহায্য করবে।

৪) পেঁয়াজ বা রসুনের খোসা ছাড়ানোর সময় কিন্তু ফ্যানের হাওয়ার কারণে এগুলো রান্না ঘরের চারপাশে উড়ে গিয়ে থাকে। যে কারণে রান্নাঘর পরিষ্কার করতে গিয়ে কিন্তু আমাদের বেশ ঝামেলার মুখোমুখি পড়তে হয়।। তবে একটা ছোট্ট টিপস আপনারা এক্ষেত্রে ফলো করতে পারেন। পেঁয়াজ বা রসুনের খোসা কাটার সময় একটা পাত্রে কিছুটা পরিমাণ জল নিয়ে তার মধ্যে এই খোসাগুলোকে রাখলেই দেখবেন আর সেগুলো উড়ে কোথাও যাচ্ছে না।।

৫) ভেন্ডি বা ঢেঁড়স খেতে কমবেশি সকলেই পছন্দ করে থাকেন। তবে এটি রান্না করার সময় একপ্রকার চটচটে ভাব দেখা যায় যেটা ভীষণ বিরক্তিকর। এটি দূর করার জন্য ভেন্ডি ভাজা করতে গেলে বা রান্না করার সময় কয়েক ফোঁটা লেবুর রস যোগ করে দেবেন। দেখবেন এই সবজির মধ্যেকার সমস্ত চটচটে ভাব গায়েব হয়ে গেছে।

৬) পারফেক্ট বিরিয়ানি বানানোর জন্য সঠিকভাবে এর চাল বানিয়ে নেওয়াও কিন্তু জরুরি। বিরিয়ানির চাল তখনই ঝরঝরে হবে যখন এটা বানানোর প্রায় 5 ঘন্টা আগে আপনারা ভিজিয়ে রাখবেন। দুই থেকে তিনবার চাল ধুয়ে ভিজিয়ে রাখবেন এবং এর মধ্যে এক চামচ ঘি কিংবা সাদা তেল যোগ করে দেবেন।

৭) করলা একটি অত্যন্ত পুষ্টিকর সবজি হওয়ার সত্বেও তেতো ভাবের কারণে অনেকে এটা খেতে চান না। কিন্তু খুব সহজেই আপনারা এই তেতো ভাব দূর করে নিতে পারেন। তার জন্য করোলা কাটার পরেই এর মধ্যে প্রায় এক থেকে দুই টেবিল চামচ লবণ যোগ করে দেবেন। সঙ্গে দিয়ে দিতে হবে সামান্য পরিমাণে লেবুর রস। বেশ কিছুক্ষণ সময় জলের মধ্যে আপনারা এটাকে ডুবিয়ে রাখবেন। এরপর রান্না করলে দেখবেন সমস্ত তেতো ভাব দূর হয়ে গিয়েছে।

৮) বাজার থেকে পটল নিয়ে আসার পরে গরম কালে পটল কিন্তু শুকিয়ে যায়। এই শুকিয়ে যাওয়া পটল রান্না করলে খেতে খুব একটা ভালো লাগে না। এই পটলগুলোকে সতেজ করতে চাইলে প্রথমেই কেটে নেবেন। তারপর পর্যাপ্ত জল দিয়ে লবণ আর চিনি মিশিয়ে দিন। লবণ আর চিনি মেশানো জলে এভাবে পটল ডুবিয়ে রাখলে কিন্তু দেখবেন খুব সহজেই এগুলো সতেজ হয়ে গিয়েছে।

৯) পনির রান্না করার আগে যখন ভাজা হয় তখন কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই এটা খুব শক্ত হয়ে গিয়ে থাকে। রান্না করার পরে এই শক্ত পনির খেতে একেবারেই ভালো লাগেনা। এই সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য একটা পাত্রে লবণ জল রেখে দেবেন এবং ভাজা পনিরগুলোকে তার মধ্যে কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখবেন। তারপর নিজেদের ইচ্ছে মতন পনির রান্না করে নিলেও দেখবেন এটা শক্ত হবে না।

১০) খুব বেশি দিন বাড়িতে সুজি ফেলে রাখলে কিন্তু এর মধ্যে পোকা লেগে যায় বা দানাদার অংশ সৃষ্টি হয়। যদি আপনার বাড়িতেও অতিরিক্ত সূজি থাকে সেক্ষেত্রে এটাকে হালকা করে শুকনো করাইতে ভেজে নিন।লো টু মিডিয়াম ফ্লেমে ছয় থেকে সাত মিনিট আপনাকে এই ভাজার কাজটা করতে হবে। তারপর এটাকে ঠান্ডা করে যে কোন এয়ার কন্টেনারে ভরে নিলেই কিন্তু দেখবেন পোকাও লাগবে না আর নষ্ট হবে না।

১১) বাজার থেকে অনেক সময় একবারে বেশি করে কাঁচা লঙ্কা কিনে নিয়ে আসা হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় ফ্রিজে রেখে দিলেও কিন্তু এই লঙ্কা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আপনারা যদি লঙ্কার বোঁটা ছাড়িয়ে ফ্রিজে রেখে দেন তাহলে দেখবেন অনেক দিন পর্যন্ত এটা ভালো থাকবে।

১২) চলে আসা যাক আমাদের আজকের প্রতিবেদনের একেবারে সর্বশেষ টিপসে। মাছের ডিম দিয়ে আমরা কিন্তু বেশ লোভনীয় রান্না করে থাকি। তবে যাই রান্না করি না কেন প্রথমে কিন্তু এটা ভেজে নিতে হয়। কিন্তু মাছের ডিম তেলে দেওয়ার সাথে সাথেই চারদিকে ছড়িয়ে যেতে থাকে। এই সমস্যার সমাধান করতে চাইলে আপনারা মাছের ডিম রান্না করার সময় এতে সাধারণ মুরগির ডিম একটা ফেটিয়ে দিয়ে দিন। দেখবেন এরপর যেভাবেই রান্না করুন বা ভাজাভুজি করুন না কেন কোনরকম ভাবেই কিন্তু এটা আর ছড়িয়ে যাবে না।

Back to top button