কমে যাবে সংসারের অর্ধেক খাটনি! মাথায় রাখুন এই দুর্দান্ত ও কার্যকরী কয়েকটি কিচেন টিপস

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রত্যেকেরই বাড়িতে দৈনন্দিন প্রচুর কাজের মাধ্যমে আর নিজেদের জন্য সময় বের করা হয়ে ওঠে না। সংসারের এত কাজের মধ্যে কিন্তু অনেকেই সামলাতে না পেরে হিমশিম খেয়ে যান। তবে আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না সঠিক কিছু পদ্ধতি জানা থাকলে খুব সহজেই কিন্তু বাড়ির কাজ সামলে নেওয়া যেতে পারে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের ‌ জন্য শেয়ার করে নিতে চলেছি কয়েকটি কিচেন টিপস। চলুন তাহলে আর দেরি না করে শুরু করা যাক আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদন।

কয়েকটি প্রয়োজনীয় কিচেন টিপস:

১) অনেকের বাড়িতেই কাজের চাপে আগে থেকে বেশি করে মশলা বানিয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে। এবার দীর্ঘ সময় মসলা এভাবে বানিয়ে রাখলে কিন্তু তার গুনাগুন সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যায়। তবে তার জন্য সহজ পদ্ধতিতে বাটার মশলা আপনারা আইস বক্সের ফাঁকা অংশে বা মোল্ডে রেখে দিতে পারেন। যখন এগুলো বরফ হয়ে যাবে তখন খুব সহজেই প্রয়োজন অনুযায়ী বের করে নিতে পারবেন। যে কোনো এয়ার টাইট পাত্রে রেখে দিলেই কিন্তু মসলা সংরক্ষণ হয়ে যাবে।

২) শীতকালীন সবজি হিসেবে ধনে পাতা সংরক্ষণ করতে চাইলেও আপনারা একটি বিশেষ টিপস অবলম্বন করতে পারেন। তার জন্য এয়ারটাইট পাত্রে রাখার আগে আপনাদের ধনেপাতা ভালো করে টিস্যু দিয়ে মুড়িয়ে নিতে হবে। তাহলে কোন রকম বাইরের বাতাস এতে প্রবেশ করতে পারবে না আর অনেকদিন পর্যন্ত ভালো থাকবে এটি।

৩) আদা কাটার সময় হাজারো ধোয়ার পরেও এর মধ্যে একটা আঁশ থেকে যায়। এর জন্য আপনারা শুরুতেই এটিকে ভালোভাবে গ্রেট করে নিতে পারেন। তাহলে কিন্তু দীর্ঘ সময় পর্যন্ত এটা ভালো অবস্থায় রাখা যাবে।

৪) কোন কারনে যদি হাত বা পায়ে জ্বালাপোড়ার সমস্যা হয় সেক্ষেত্রে আপনারা ব্যবহার করতে পারেন পুই শাকের পাতা। কিছুটা পরিমাণ পুঁইশাক নিয়ে ভালোভাবে হাতে ক্রিম লাগানোর মতন করে মাখিয়ে নিন এবং ফলাফল নিজেরাই দেখুন। যদি আপনাদের কাছে পুইশাক না থাকে সেক্ষেত্রে দুধের ঠান্ডা সর কিন্তু এই কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে।

৫) রান্না করার সময় ভুল করে তরকারিতে খুব বেশি হলুদ হয়ে গেলে কয়েকটি পুঁইশাকের পাতা এর মধ্যে ডুবিয়ে রেখে কিছুক্ষণ পর তুলে দিতে পারেন। দেখবেন খুব সহজেই অতিরিক্ত হলুদ শোষিত হয়ে গিয়েছে। আবার একটা লোহার খুন্তি গরম করে কিছুক্ষণ রান্নার মধ্যে ধরতে পারেন তাহলেও কিন্তু খুব সহজে হলুদের তিতকুটে ভাব চলে যাবে।

৬) অনেকেই হালিম খেতে দারুন পছন্দ করে থাকেন।।ঝটপট হালিম তৈরি করার জন্য আপনারা খেসারি ডাল মাসকলাই ডাল এবং মুসুরির ডাল নিয়ে নেবেন। এছাড়াও নিয়ে নিতে হবে মুগের ডাল। এগুলো ভেজে নেওয়ার পরে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করতে হবে। যখন মাংস রান্না করবেন তখন গরম জলে এভাবে ভিজিয়ে রাখবেন তাহলে দ্রুত রান্না হবে।

৭) এবার আমরা বলবো হালিমের মসলা মিক্সের কথা। কয়েকটি বিশেষ উপকরণ ব্যবহার করে সহজেই এটা কিন্তু বাড়িতে তৈরি করা যেতে পারে। সুতরাং বাইরে এগুলো কিনে অর্থ খরচ করবেন না।

৮) অনেকেই বাড়িতে ধনেপাতা সংরক্ষণ করে রাখেন এবং যে জায়গায় রাখেন সেটাতে কিছুদিনের মধ্যেই কিন্তু জলীয়ভাব লক্ষ্য করা যায়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কোন একটি এয়ারটাইট পাত্র নিয়ে তার মধ্যে টিস্যু পেপার বসিয়ে ধনেপাতাগুলোকে রাখতে পারেন।

৯) কলা বাজার থেকে নিয়ে আসার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই কিন্তু এক প্রকার কালচে দাগের সৃষ্টি হয়ে যায়‌। কলার বোটা অংশটাকে এই ক্ষেত্রে আপনারা ফয়েল পেপার দিয়ে ভালোভাবে মুড়িয়ে রাখতে পারেন। তাহলে কিন্তু দীর্ঘদিন পর্যন্ত এটি ভালো অবস্থায় থাকবে আর নষ্ট হবে না।

১০) আমরা চলে এসেছি আজকের প্রতিবেদনের একেবারে সর্বশেষ টিপসে। অনেকেই আছেন যারা দীর্ঘ সময় পর্যন্ত লেবু সংরক্ষণ করে রাখতে চান। তারা অবশ্যই সঠিক পদ্ধতিতে একটা পেপারে লেবুগুলো মুড়িয়ে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। তাহলে কিন্তু এগুলো দীর্ঘদিন পর্যন্ত ভালো অবস্থায় থাকবে। সুতরাং আমাদের আজকের শেয়ার করা টিপস গুলির মধ্যে আপনাদের কোনটা ভালো লাগলো সব থেকে বেশি তা অবশ্যই জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button