চুল হবে আরও বেশি ঘন ও কালো কুচকুচে! শুধু জেনে নিন আমলকীর এই ৩টি দুর্দান্ত ব্যবহার

নিজস্ব প্রতিবেদন:  আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা বলতে চলেছি আমলকির কথা। শীতকালেই বেশিরভাগ এই ফল পাওয়া যায় যাকে ইংরেজিতে বলা হয় গুস বেরি। বাজারের বিভিন্ন নামী ব্র্যান্ডের উপকরণেও কিন্তু এই আমলকি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আসলেই এই ফলটি কিন্তু আপনার চুলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে পারে।। এটি একবার ব্যবহার করলেই ফলাফল দেখে আপনারা নিঃসন্দেহে অবাক হয়ে যাবেন।

তবে চুলের যত্ন করার জন্য আমলকি ব্যবহার করার জন্য কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। আপনাদের অবশ্যই সেই নিয়মগুলি ভালো করে জেনে নিতে হবে। তাহলেই অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যে আপনার চুল হয়ে উঠবে ঘন এবং সুন্দর। চলুন তাহলে আর সময় নষ্ট না করে চুলের যত্নে আমলকির কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

চুলের যত্নে আমলকির ব্যবহার:

১) আমলকি শ্যাম্পু:

চুলের যত্ন করার জন্য আমরা কিন্তু বাজার থেকে নানান ধরনের শ্যাম্পু কিনে ব্যবহার করে থাকি। তবে সেই সব না করে যদি বাড়িতেই আমলকি দিয়ে শ্যাম্পু করে নেওয়া যায় তাহলে কিন্তু কয়েক গুণ বেশি কাজ হবে। আমলকি শ্যাম্পু তৈরি করা কিন্তু খুব একটা কঠিন কাজ নয়। এর জন্য একটি পাত্রের মধ্যে আপনাদের নিয়ে নিতে হবে দুটি বড় সাইজের আমলকি আর ১০০ গ্রাম রিঠা ফল। আগের দিন রাতে এই দুটি উপকরণকে ভালো করে ভিজিয়ে রেখে দিন এবং পরের দিন শ্যাম্পু হিসেবে ব্যবহার করুন। শ্যাম্পুর শেষে আমলকির রস মিশিয়ে চুলে ম্যাসাজ করে নিতে পারেন যা আপনার চুলের বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।

২) আমলকি টোনার:

আমলকি শ্যাম্পুর পাশাপাশি চুলের যত্নে আমলকি টোনার ব্যবহার করা যেতে পারে। টোনার তৈরি করাও কিন্তু খুবই সহজ একটি কাজ। এর জন্য একটি পাত্রে প্রথমেই এক লিটার জল নিয়ে নিন। তার মধ্যে তিন থেকে চার টেবিল চামচ গ্রিন টি দিয়ে কিছুক্ষণ ভালো করে ফুটিয়ে নিন। এবার এটাকে ছেঁকে নিয়ে দুটি আমলকির রস ভালো করে মিশিয়ে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। এটির মধ্যে আমলকী রস করে দিয়ে চুলের গোড়ায় গোড়ায় দিয়ে দিন। তাইলে কিন্তু আপনারা এই টোনার প্রতিদিনই ব্যবহার করতে পারেন। সবথেকে ভালো ব্যাপার এই টোনার চুলে লাগানোর পর কিন্তু আপনাদের আর শ্যাম্পু করার প্রয়োজন নেই। সুতরাং খুব একটা খাটনি হবে না। নিঃসন্দেহে এই হেয়ার টোনার আপনার চুলের বৃদ্ধিতে এবং চুলের ঘনভাব বাড়াতে সাহায্য করবে।

৩) আমলকি হেয়ার প্যাক:

এটিও চুলের জন্য একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় জিনিস। কয়েকটি আমলকি নিয়ে তার একটি পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে।তারপর এই পেস্টের সঙ্গে আপনাদের কয়েকটি উপকরণ মিশিয়ে নিতে হবে। এই উপকরণ গুলি হল টক দই, একটি ডিম এবং হেনা পাউডার। এবার এই হেয়ার প্যাক আপনারা যে কোন একদিন সপ্তাহে কিন্তু চুলে লাগিয়ে নিতে পারেন। এটি লাগানোর মোটামুটি এক ঘন্টা পর আপনাদেরকে ভালোভাবে শ্যাম্পু করে নিতে হবে। সবশেষে আপনাদের কয়েকটি কথা বলতে চাই যে, যদি উপরিউক্ত ব্যবহৃত কোন উপকরণের ঠিক আপনাদের অ্যালার্জি থাকে সেক্ষেত্রে কিন্তু অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া সেটা ব্যবহার করবেন না।

Back to top button