মাত্র ২ টাকায় পেয়ে যান অনু শাড়ি! এখান থেকে কিনে শুরু করে দিন ব্যবসা, অল্পদিনেই হবেন লাভবান

নিজস্ব প্রতিবেদন: লকডাউনের পর থেকেই দেশে বেকারত্বের পরিমাণ প্রচুর বেড়ে গিয়েছে। অনেক সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় মানুষের সংকট ঘনীভূত। এদিকে অর্থ উপার্জন না করলেও তো চলবে না। এমতাবস্থায় হাতিয়ার হিসেবে সকলেই কিন্তু ব্যবসাকে বেছে নিয়েছেন এগিয়ে যাওয়ার জন্য। ব্যবসা তো নানা ধরনের হতে পারে, কিন্তু ঠিক কোন ধরনের ব্যবসা করলে আপনারা সঠিকভাবে এগিয়ে যেতে পারবেন সেটাই ভাবনার বিষয়।

বিশেষ করে যারা নতুন ব্যবসায়ী রয়েছেন তাদের পক্ষে কিন্তু নির্দিষ্ট একটা ক্ষেত্র বেছে নেওয়া অত্যন্ত মুশকিল হয়ে পড়ে। তবে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমরা আপনাদের এই সমস্যার সমাধান করতে চলেছি। আজ আমরা এমন একটি ব্যবসার আইডিয়া আপনাদের সাথে শেয়ার করে নেব যাতে বিনিয়োগ হবে কম এবং উপার্জন হবে অনেক বেশি।

শাড়ির ব্যবসার আইডিয়া:

আমাদের পোর্টালের পাতায় এর আগেও অনেক শাড়ির আইডিয়া আপনাদের সাথে শেয়ার করে নিয়েছি। অনেকেই এই জাতীয় ব্যবসাগুলো শুরু করে প্রচুর পরিমাণে লাভবান হয়েছেন। তবে আজ আমরা আপনাদের কাছে নিয়ে চলে এসেছি এমন একটি দোকানের খবর যেখানে অনু‌ শাড়ি পাবেন মাত্র ২ টাকায়।

কি অবাক হচ্ছেন তো? যেখানে দু টাকায় একটা সুতো ঠিকঠাক পাওয়া যায় না সেখানে শাড়ির কথা শুনলে তো অবাক হতেই হয়। তবে এই দোকানে আপনারা এই ব্র্যান্ডের শাড়ি পেয়ে যাবেন মাত্র ২ টাকায়, অন্যদিকে বন্দনা শাড়ি পাবেন মাত্র ৩ টাকায়। নদী আর শান্তিপুরে এই দোকানটি অবস্থিত। এই নির্দিষ্ট ব্রান্ডের শাড়ি গুলি ছাড়াও এখানে বহু শাড়ির সম্ভার রয়েছে যার উপরে বিপুল কালেকশন আপনারা পেয়ে যাবেন।।

বিশেষ করে ছাপার শাড়ির উপরে এখানে অনেক অফার রাখা হয়েছে। কয়েকটি উদাহরণ যদি আপনাদের দিতে চাই তাহলে বলা যাবে এখানে অল ওভার কাজের মধ্যে ছাপা শাড়ি আপনারা পেয়ে যাবেন মাত্র ১৩০ থেকে ১৫০ টাকায়, জামদানি কাজের মধ্যে ছাপার শাড়ি পেয়ে যাবেন ১৮০ টাকায়। এছাড়াও হ্যান্ডলুম শাড়ি পাবেন মাত্র ২০০ টাকা থেকে। ছাপার শাড়ি এবং হ্যান্ডলুম শাড়ি ছাড়াও এখানে কিন্তু আরো বিভিন্ন ধরনের সম্ভার রয়েছে।

প্রত্যেকটা শাড়ির প্রায় ১০ থেকে ১৫ রকমের রং আর ভ্যারাইটি রয়েছে। শুধু পণ্যের পরিমাণ এর ওপর আপনাকে কখনোই কোন চিন্তা করতে হবে না। যত বেশি করে জিনিস আপনারা কিনবেন ততই কিন্তু বেশি ডিসকাউন্ট আপনারা পাবেন। মোটামুটি দোকান বা বিক্রি করার জায়গা ঠিকঠাক থাকলে হাতে মাত্র ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। আপনারা যারা ব্যবসা শুরু করতে আগ্রহী তারা একেবারেই দেরী না করে আমাদের নিচের দেওয়া ঠিকানায় যোগাযোগ করে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করে নিন।।

বিক্রেতার ঠিকানা:

হাওড়া থেকে আসতে চাইলে হাওড়া টু কাটোয়া লোকালের চেপে গুপ্তিপাড়ায় নামতে পারেন এই দোকানে আসার জন্য। যদি শিয়ালদহ থেকে আসতে চান তাহলেই শান্তিপুরগামী যেকোনো ট্রেনে চেপে লাস্ট স্টপেজ শান্তিপুরে নামতে হবে। সেখান থেকে যোগাযোগ নম্বরে ফোন করে নিলেই দোকানের ঠিকানা আপনারা পেয়ে যাবেন অথবা আপনাদেরকে গাইড করে নিয়ে আসা হবে।
রায় শাড়ি প্যালেস
প্রোপাইটার নাম : রমেন রায়/ সৌমেন রায়
শান্তিপুর, গোবিন্দপুর, বিবেকানন্দনগর, নদীয়া।
Contact : 6295437664/8250007913

Back to top button