কি কি সুবিধা পাবেন দুয়ারে সরকারের ক্যাম্প থেকে? লাগবে কি কি তথ্য? জেনে নিন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- আমরা জানি যে পুনরায় রাজ্যের বুকে শুরু হতে চলেছে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প । আগেরবারের দুয়ারে সরকার কেন অনুষ্ঠিত হবার পর অনেক সমস্যা সমাধান হয়েছিল তৎক্ষণাৎ এবং সূত্র অনুসারে এমনটা আমরা জানতে পারি আগের বছর ওটা রাজ্যজুড়ে মোট ৩২০০০ ক্যাম্প বসানো হয়েছিল ১০০০০ সমাধান তৎক্ষণাৎ ভাবে করে দেওয়া হয়েছিল । অর্থাৎ যে সমস্ত সমাধান গুলো পাড়ায় সমাধান কর্মসূচির আওতায় করছিল ।

এর পাশাপাশি আরও অনেক কাজ-কর্ম হয়েছে তাই এই সাফল্য কে সামনে রেখে দ্বিতীয়বারের জন্য দুয়ারে সরকার অনুষ্ঠিত হতে চলেছে রাজ্যের বুকে । আগামী ১৬ ই আগস্ট থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হবে এই ক্যাম্প । মোট ১৮ টি প্রকল্পের সুবিধা একসাথে পাওয়া যাবে এইবারের দুয়ারে সরকার প্রকল্পের মাধ্যমে । আসুন আমরা জেনে নেবো যে এই দোয়াটা সরকার ক্যাম্প এর মাধ্যমে আপনারা ঠিক কি কি প্রকল্প সুবিধা পেতে পারেন ।

দুয়ার সরকার ক্যাম্পে এবারে খাদ্যসাথী অর্থাৎ রেশন কার্ড সংক্রান্ত যাবতীয় যা কিছু সমস্যার সমাধান করা হবে । আপনি যদি নতুন রেশন কার্ড তৈরি করতে চান ঠিকানা বদলাতে চান রেশন দোকান পরিবর্তন করতে চান বা কোনো ত্রুটি সংশোধন করতে যান সব কিছুর সমাধান মিলবে এই ক্যাম্পে ।

দ্বিতীয়ত হচ্ছে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড স্বাস্থ্য সাথী কার্ড আগের বছর এক অভিনব সাড়া ফেলেছিল গোটা রাজ্যে সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা এবং অপারেশন করাতে পারবেন এবং বাৎসরিক ৫ লক্ষ টাকা সরকারি অনুদান দেওয়া হবে চিকিৎসার জন্য তাই এই স্বাস্থ্য সাথী কার্ড যারা এখনো পর্যন্ত করেনি তারা কিন্তু করতে পারেন ।

নতুন ব্যাংক একাউন্ট খোলা :- লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প বা কৃষক বন্ধু প্রকল্পের জন্য একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট প্রয়োজন পড়ে । কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে এ রাজ্যের বহু মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই । সেক্ষেত্রে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে গিয়ে আপনারা আপনাদের নতুন ব্যাংক একাউন্ট খুলতে পারবেন । এর জন্য আপনাকে ৩ কপি রঙিন পাসপোর্ট সাইজের ছবি লাগবে । ভোটার কার্ড আধার কার্ডের জেরক্স লাগবে তার পাশাপাশি আরও যাব তুই যে সমস্ত নথি পত্র গুলো রয়েছে সেগু-লি জেরক্স করে নিয়ে যেতে পারেন ।

এছাড়া বিনামূল্যে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা নামে একটি প্রকল্প শুরু করা হয়েছে এর মাধ্যমে এককালীন ২৫ হাজার টাকা পাওয়া যাবে এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শিক্ষার ক্ষেত্রে চার থেকে ৩০ হাজার টাকা স্কলারশিপ পাওয়া যেতে পারে এই প্রকল্পের জন্য আপনি নিজের নাম নথিভুক্ত করতে পারেন ।

অপরদিকে জমি সংক্রান্ত কোনো তথ্য পরিবর্তন করতে গেলে বা জমি সংক্রান্ত মিউটেশন এর জন্য আর যদি আপনি আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু আর সরকারকে সুযোগ-সুবিধা আপনি পেয়ে যাবেন । মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় এতগু-লি প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা রাজ্যের মানুষের জন্য এনে দেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র যাতে রাজ্যের মানুষ কোনো রকম কোনো অসুবিধার সম্মুখিন না হতে হয় ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button