শিশুদের ছোটো ভেবে ভুলেও তাদের সামনে করবেন না এই কয়েকটি কাজ, নইলে আপনিই পড়বেন সমস্যায়!

নিজস্ব প্রতিবেদন: জন্মের পর থেকেই কিন্তু অত্যন্ত যত্ন সহকারে শিশুকে লালন-পালন করে থাকেন অভিভাবকেরা। সঠিকভাবে শিশুর যত্ন করতে না পারলে বা তাকে শিক্ষা দিতে না পারলে কিন্তু বড় হওয়ার পর নানান ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় তাকে। বলা হয় শিশুরা অনুকরণপ্রিয় হয়ে থাকে। অর্থাৎ তারা যেটা দেখে সেটাকেই অনুকরণ করতে অত্যন্ত পছন্দ করে। সুতরাং শিশুদের সামনে এমন কোন কাজ করা উচিত নয় যেটা ভুল বা ক্ষতিকর।

বিভিন্ন গবেষণার মাধ্যমে প্রমাণিত যে পারিবারিক কলহের মধ্যে থাকলে শিশুর মানসিক বিকাশ বাধা প্রাপ্ত হয়। শুধুমাত্র তা নয় শিশুর বাবা-মা যদি কোন রকমের খারাপ ভাষায় কথা বলে থাকে বা অপশব্দ প্রয়োগ করে থাকে সেটার প্রভাবও কিন্তু ছোট শিশুদের উপরে পড়তে দেখা যায়। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করে নিতে চলেছি শিশুর সামনে কোন কোন কাজগুলি একেবারেই করা উচিত নয়।

১) ফোন বা টিভির কম ব্যবহার:

শিশুর সামনে যতটা সম্ভব ফোন বা টিভি কম ব্যবহার করুন। অনেক শিশুরাই কিন্তু ছোটবেলা থেকে মোবাইল অ্যাডিক্টেড হয়ে পড়ে যা একেবারেই ভালো নয়। যদি আপনি তার সামনে বেশি করে এই গ্যাজেট গুলি ইউজ করে থাকেন তখন কিন্তু তাদের মনেও এগুলি ব্যবহার করার জন্য আগ্রহ জন্মাবে। সুতরাং আপনাকে শিশুর উপযুক্ত শিক্ষা এবং মানসিক বিকাশের জন্য কিন্তু নিজের ফোন বা টিভি অতিরিক্ত ব্যবহার করাও কমাতে হবে।

২) কাউকে অপমান করা থেকে বিরত থাকুন:

ভুল করেও আপনার সন্তানের সামনে অন্য কোন ব্যক্তিকে কিন্তু আপনারা অপমান করবেন না। যদি আপনারা এটা করে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনার শিশু ও আপনাকে অনুকরণ করে মানুষকে ছোট করে বা অপমান করে কথা বলা শিখে যাবে। যদি আপনারা শিশুকে সঠিক শিক্ষা দিতে চান তাহলে এবার থেকে এই বিষয়ে লক্ষ্য রাখুন।

৩) ভদ্রতা বজায় রাখা:

শিশুর সামনে এমন কোন কাজ করবেন না যেটা শালীনতা নষ্ট করে থাকে। আপনার সন্তানকে কিন্তু ছোট থেকেই শিক্ষা দিতে হবে কিভাবে মানুষের সামনে ভদ্র এবং সভ্য ভাবে থাকা যায়। এমনকি শিশু সামনে থাকলে স্বামী স্ত্রীরাও কিন্তু এই বিষয়ে লক্ষ্য রাখবেন। কখনোই কিন্তু শিশুর সামনে স্বামী স্ত্রীরা ঘনিষ্ট হওয়ার চেষ্টা করবেন না। এটা আপনার সন্তানের ওপরে কুপ্রভাব ফেলতে পারে।

৪) চিৎকার করা থেকে বিরত থাকা:

অনেকেই কিন্তু চিৎকার করে কথা বলতে পছন্দ করেন বা ছোটখাটো ব্যাপার নিয়েই অত্যন্ত বেশি রকমের জোর গলায় কথা বলে থাকেন। কিন্তু যদি আপনার বাড়িতে কোন ছোট বাচ্চা রয়েছে সেক্ষেত্রে রেগে গেলেও নিজের মেজাজ নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন। এটা আপনার আর আপনার শিশু উভয়ের জন্যই খুবই ভালো।

৫) মানুষের মধ্যে বিভেদ করা থেকে বিরত থাকুন:

আপনার প্রত্যেকটা আচরণে কিন্তু শিশু মনের উপর প্রভাব ফেলবে। শিশুর সামনে ধনী-গরিব, জাত পাত থেকে শুরু করে নারী-পুরুষ সমস্ত ধরনের বিভেদ করা থেকে বিরত থাকুন। ছোট থেকেই যদি মানুষের মধ্যে এভাবে আপনারা শিশুকে ভেদাভেদ করা শিখিয়ে দেন তাহলে কিন্তু বড় হওয়ার পরেও সে আর এই চিন্তা ভাবনা থেকে কখনো বেরিয়ে আসতে পারবে না। মনে রাখবেন আপনার শিশুর সঠিক শিক্ষা আর সঠিক বিকাশ কিন্তু আপনাদেরই হাতে।

Back to top button