রোজ গাছের গোড়ায় কয়লা দিলে কি হয় জানেন? জানলে আপনিও দেবেন প্রতিদিন

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাড়িতে গাছ লাগাতে পছন্দ করেন না এরকম মানুষ কিন্তু খুব কমই রয়েছেন। লক্ষ্য করে দেখবেন যারা চাষাবাদ জানেন না তারাও কিন্তু বাড়িতে বাগান করতে খুব পছন্দ করেন। আজকাল খোলামেলা জমি খুব একটা বেশি না থাকার কারণে অনেকেই কিন্তু স্বল্প পরিসরে বা কিচেন গার্ডেনের মধ্যেই বাগান তৈরি করছেন। তবে অনেক ক্ষেত্রেই ঠিকঠাক পরিচর্যা করার পরেও দেখবেন কিছু সমস্যা গাছে থেকেই যায়।

এবার যারা নতুন বাগানের কাজের সাথে যুক্ত হয়েছেন তারা হয়তো সমস্ত সমস্যার সমাধান জানেন না। যে কারণে একটা সময় পর আপনার বাড়িতে লাগানো সাধের গাছটি হয়তো নষ্ট হয়ে যায়।পাতা কুঁকড়ে পড়া থেকে শুরু করে ফুল ঝরে পড়া বা গাছে মিলিবাগ জাতীয় পোকার আক্রমণ সবকিছুই কিন্তু বেশ চিন্তার বিষয়। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা এই সমস্ত সমস্যার সমাধানের কয়লার ভূমিকা আলোচনা করতে চলেছি। প্রতিবেদনটি এতদূর পড়ার পর আপনারা হয়তো ভাবছেন যে কয়লা কিভাবে এসব কাজে সাহায্য করতে পারে? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

প্রথম পদ্ধতি:

কয়লা দিয়ে খুব সহজেই গাছে প্রয়োগ করার জন্য আপনারা সার বানাতে পারেন। তার জন্য একটা পাত্রের মধ্যে ৫০০ মিলিলিটার জল নিয়ে তাতে এক চামচ চুন যোগ করুন। সাধারণত পান খাওয়ার সময় যে চুন ব্যবহার করা হয়ে থাকে সেটাই ব্যবহার করবেন এই কাজে। গাছের বিভিন্ন পরিচর্যায় চুনের কিন্তু ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। এবার এই চুন জলের মধ্যে আপনাদের যোগ করতে হবে এক চামচ ভিনিগার এবং ২৫ গ্রাম পরিমাণে কয়লা। সমস্ত উপকরণ গুলো যোগ করার পরে ১০ ঘণ্টা এই অবস্থাতেই পাত্রটিকে ফেলে রাখুন। এভাবে থাকলে কয়লা সমস্ত উপকরণগুলোকে খুব সহজেই শুষে নেবে। নির্ধারিত সময় পরে এই সারটি তৈরি হয়ে যাবে এবং খুব সহজেই আপনারা কিন্তু এটা গাছে প্রয়োগ করতে পারবেন।

কিভাবে প্রয়োগ করবেন?

গোটা কয়লা সহ সারটি আপনারা গাছে প্রয়োগ করতে পারবেন। প্রতি সপ্তাহে একবার করে এই সার গাছে প্রয়োগ করবেন। কুমড়ো পেঁপে অথবা লাউ গাছে এই সার প্রয়োগ করা হলে কিন্তু প্রচুর পরিমাণে ফলন পাওয়া যায় এবং কখনো গাছের পাতা কুঁকড়ে যায় না। পাশাপাশি গাছের বৃদ্ধিতেও এই তরল সার ব্যাপক পরিমাণে সাহায্য করে থাকে।

দ্বিতীয় পদ্ধতি:

এবার কয়লা দিয়ে আরও একটি সার বানানোর প্রক্রিয়া আমরা জেনে নেব। পরিমাপ করে একটা পাত্রের ২৫০ মিলি জল নিয়ে নিন। এরমধ্যে ২ চামচ গুঁড়ো কয়লা মিশিয়ে ২৪ ঘন্টা রেখে দিন। তারপর এটাকে ভালো করে ছেঁকে নেবেন। এবার যে কোন শ্যাম্পু নিয়ে হাফ চামচ এবং হাফ চামচ সর্ষের তেলের মধ্যে যোগ করে দেবেন। ভালোভাবে সমস্ত উপকরণগুলোকে মিশিয়ে নিন। তারপর একটা স্প্রে বোতলে ভরে ফেলুন। সন্ধ্যের সময় গাছে আপনারা এই মিশ্রণটি খুব সহজেই স্প্রে করে দিতে পারেন। মিলিবাগ জাতীয় বিভিন্ন পোকামাকড় থেকে শুরু করে নানান ধরনের ছত্রাকের আক্রমণ থেকে কিন্তু খুব সহজেই গাছ রেহাই পাবে।।

Back to top button