আপনার কাছে কি পুরনো 50 পয়সার কয়েন আছে? বিক্রি করে হতে পারেন লাখোপতি! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :-2016 সালে প্রথমবারের জন্য নোট বন্দি করেছিল ভারত সরকার ।500 টাকা এবং হাজার টাকার নোটের উপর জারি করা হয়েছিল প্রতিবন্ধকতা ।যার ফলে বাজার থেকে উঠে যেতে শুরু করেছিল এই দুইটি নোট । চরম ভোগান্তির শিকার হয়েছিল কয়েক কোটি মানুষ ।কিন্তু যদি আমরা লক্ষ্য রাখি 2011 সালে তাহলে দেখতে পাব যে চার আনা বা 50 পয়সার কয়েন সম্পূর্ণ রকম হবে বন্ধ করে দিয়েছিল ভারত সরকার ।

বাজারের রীতিমতো অচল হয়ে পড়েছিল এই সমস্ত কয়েনগু-লি ।কিন্তু এখনো পর্যন্ত বহু বাড়িতে এই 50 পয়সার কয়েন মজুদ রয়েছে ।যদি আপনার বাড়িতে 50 পয়সার কয়েন মজুদ থেকে থাকে তাহলে কিন্তু আপনিও সেটি অনলাইনে বিক্রি করে রাতারাতি লাখোপতি হতে পারেন ।

দেখুন কম বয়সে বেশি টাকা উপার্জন করার স্বপ্ন আমাদের প্রত্যেকেরই থেকে থাকে । আমরা প্রত্যেকেই চাই যাতে আমরা একটু বেশি টাকা উপার্জন করতে পারি । এবং সংসারে অভাব অনটন দূর করতে পারি । কিন্তু সংসারের নিয়মের বেড়াজালে পড়ে আমরা তা করতে পারিনা ।

কিন্তু যদি হঠাৎ করে বাড়ির মধ্যে থাকা পুরনো জিনিস বিক্রি করে রাতারাতি লাখোপতি হয়েছে তাহলে ব্যাপারটা মন্দ হয়না । আপনি হয়তো ভাবছেন পুরনো জিনিসের দাম লাখ টাকা হতে পারে কিভাবে ? তেমনি জানাচ্ছে সমস্ত ই-কমার্স সাইটগুলো । যেখানে আপনি পুরনো দিনের কয়েন বিক্রি করে রাতারাতি লাখ টাকা উপার্জন করতে পারেন ।

সম্প্রতি জানা যাচ্ছে যে আটানার কয়েন অর্থাৎ পুরনো দিনের ৫০ পয়সার কয়েন যদি আপনার কাছে থেকে থাকে তাহলে আপনি সেটা indiamart.com ওএলএক্স বা কয়েন বাজার ইত্যাদি ওয়েবসাইটে নিলামে তুলতে পারেন । সেই সমস্ত ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার নিজস্ব একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে এবং সে একাউন্ট এর মধ্যে যাবতীয় তথ্য প্রদান করে কয়েনের ছবি তুলে পাঠাতে হবে তাদেরকে ।

মুহূর্তের মধ্যে লক্ষ্য লক্ষ্য ক্রেতার কাছে পৌঁছে যাবে সেই ছবি এবং সেই কয়েন নিলামে উঠবে। তারপর যে ব্যক্তি বেশি দাম দিয়ে সেটি কিনবে কত টাকা আপনার । তবে শর্ত সাপেক্ষে হিসেবে বলা হয়েছে সেই কয়েন ২০১১ সালে প্রকাশিত করেছিল সরকার এবং সেই বছরই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল 50 পয়সা বা চার আনার কয়েন । সেই অর্থে এই ৫০ পয়সার দাম এত বেশি ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button