কলকাতার একদম কাছেই এই দুর্দান্ত জায়গায় উপভোগ করে আসুন পাহাড় থেকে ঝর্ণা, অর্ধেক মানুষেরই অজানা

নিজস্ব প্রতিবেদন: হাতে মাত্র একদিনের সময় অথচ মনটা খালি কোথাও উড়ু উড়ু করছে। কি করবেন কোথায় যাবেন ঘুরতে কিছুই বুঝতে পারছেন না! তবে আজকের এই প্রতিবেদনটি আপনার জন্য কিন্তু ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আজকের এই প্রতিবেদনে আমরা আপনার সাথে শেয়ার করে নেব কলকাতা থেকে মাত্র একদিনের মধ্যেই ঘুরে আসার এমন একটা ঠিকানা যেখানে আপনারা পাহাড়, ঝরনা আর জঙ্গল একসাথেই দেখতে পারবেন।

চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক এবং জেনে নেওয়া যাক এই জায়গার কথা। কিভাবে যাবেন কোথায় থাকবেন সবকিছু নিয়েই কিন্তু আমরা এই প্রতিবেদন আলোচনা করব। সুতরাং প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত কোন কিছু বাদ না দিয়ে আপনারা লেখাটি পড়বেন।

কোথায় যাবেন এবং কিভাবে?

প্রথমেই আপনাকে হাওড়া স্টেশনের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে হবে। হাওড়া স্টেশন থেকে হাওড়া রাঁচি শতাব্দী এক্সপ্রেস ধরে ধানবাদ এর উদ্দেশ্যে রওনা দিন। মোটামুটি সকাল ৫:৫০ এ যদি আপনি ট্রেন ধরেন সে ক্ষেত্রে সকাল সাড়ে নটার মধ্যেই পৌঁছে যাবেন। ধানবাদ স্টেশন থেকে বেরিয়েই গাড়ি ধরে আপনাদের হোটেলের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে হবে। এখানে বেশ কয়েকটি হোটেল আছে তার মধ্যে আপনারা হোটেল মুস্কানে থাকতে পারেন। এখানে কিন্তু বেশ ভালো প্রাইসের মধ্যেই আপনি নানান ধরনের রুম পেয়ে যাবেন। ধানবাদ স্টেশন থেকে এবার ৫৫ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত উশ্রী জলপ্রপাতের উদ্দেশ্যে আপনাদের গাড়ি করে রওনা দিতে হবে।

মোটামুটি ঘন্টা খানেকের মধ্যেই আপনারা এখানে পৌঁছে যাবেন। অসম্ভব সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশের মধ্যে এই জলপ্রপাত আপনাদেরকে রীতিমতন মুগ্ধ করে তুলবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। এবার এই জলপ্রপাত থেকে আপনাদের যেতে হবে তো তোপচাঞ্চির উদ্দেশ্যে। উশ্রী জলপ্রপাত থেকে এর দূরত্ব ১ ঘণ্টা ৩০ মিনিটের কাছাকাছি। সুতরাং যে গাড়িটি আপনারা নিয়েছেন সেটাতে করেই ট্রাভেল করবেন তাহলে কিন্তু খুব বেশি সময় আর আপনাদের নষ্ট করতে হবে না।

তোপচাঞ্চিতে ঢোকার আগে একটা এন্ট্রি পোস্ট থাকবে। যেখানে 100 টাকা দিয়ে আপনাদের গাড়ির টিকিট কাটতে হবে। এখানে একটি লেক রয়েছে যার এতটাই সুন্দর যে মনে হবে এখানেই বসে আড্ডা দেওয়া যাক।লেকের পাশে আপনারা ঘন জঙ্গল পেয়ে যাবেন। জঙ্গলের ঠিক উল্টোদিকেই আপনারা পাহাড় পেয়ে যাবেন। এখানকার এতটাই সুন্দর ভিউ কখনোই কিন্তু আপনাদের এই ভ্রমণকে একেবারে বিফলে করবে না।

ঠিক এখানেই একটু এগোলে আপনারা পেয়ে যাবেন মহানায়ক উত্তম কুমারের বাড়ি। একটা সময় তিনি এখানে বাড়ি কিনেছিলেন থাকার জন্য তবে পরবর্তীকালে সেটা অন্য জনকে বিক্রয় করে দেওয়া হয়।। এই লেকে কিন্তু প্রচুর সিনেমার শুটিং হয়েছে। সময়ের সাথে অনেক নতুন পরিবর্তন আসলেও পুরনো দিনের স্মৃতি বহন করে এই সুন্দর জায়গাগুলি আজও নিজস্ব জায়গায় বিরাজমান। এবার দুপুরের খাবার সেরে আপনারা এগিয়ে যেতে পারেন তোপচাঞ্চি থেকে ভাটিণ্ডা জলপ্রপাত দেখার উদ্দেশ্যে।

এই জায়গাটাও কিন্তু ঠিক আগের গুলোর মতই অত্যন্ত সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশে আবদ্ধ। এই জলপ্রপাতটি আপনারা কিন্তু বেশ কাছ থেকে দেখতে পারবেন। ব্যাস এটি দেখার পরেই আপনাদের একদিনের ভ্রমণ খুব সহজেই শেষ করে দিতে পারেন। তবে যদি হাতে দুই থেকে তিন দিনের সময় নিয়ে যান তবে একদিনে না ঘুরে একটু সময় নিয়ে জায়গাগুলো ঘুরে দেখবেন। নিচে হোটেলের নাম এবং যোগাযোগ নম্বর আমরা উল্লেখ করে দিলাম।
Hotel Muskan : 03262312618

Back to top button