সারারাজ্যে একেবারে নতুন! খুব অল্প পুঁজিতে শুরু করুন এই দুর্দান্ত ব্যবসা, প্রতিমাসে আয় হবে ৫০ হাজার অবধি

নিজস্ব প্রতিবেদন : চানাচুর বা নিমকি জাতীয় খাদ্য কিন্তু মানুষের একটি অত্যন্ত প্রিয় মুখরোচক খাদ্য । মানব জীবনে দিন প্রতিদিন এই সমস্ত খাদ্যের চাহিদা কিন্তু বেড়েই চলেছে। এমনিতেই বলা যায় খাদ্যের চাহিদা কখনো শেষ হয় না সুতরাং খাদ্য সংক্রান্ত ব্যবসা কিন্তু কখনোই বন্ধ হয়ে যায় না। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আলোচনা করতে চলেছি কিভাবে নমকিন বা চানাচুর জাতীয় জিনিসের ব্যবসা করলে খুব সহজেই আপনারা লাখপতি হয়ে উঠতে পারবেন অল্প সময়ের মধ্যে।

এ বিজনেস আপনি দুই ভাবে শুরু করতে পারেন, প্রথমে আপনি নিজে বিক্রয় করে আথবা কোন দোকানে সরবারহ করে । তবে আজ কাল শহর আঞ্চলে ভ্যানের মধ্যে করে চানাচুর বিক্রি করা হয় । আপনি সেখানে ও সরবারহ করতে পারেন । তবে আপনি নিযে দোকান দিয়ে ও এ ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন । তবে বিজনেস শুরু করার পুর্বে খুব ভেবে চিন্তে স্থান ,বাজার ও মানুষের চাহিদার প্রতি লক্ষ রেখে শুরু করতে হবে। তবে প্রথম আবস্থায় খেয়াল রাখবেন যেন আপনার পন্যটি অন্যদের তুলনায় ভেজাল মুক্ত পরিস্কার ও সুন্দর হয়। কারণ খাবারের গুণগত মান যদি ভালো না হয় মানুষ কিন্তু ধীরে ধীরে সেই খাবারটিকে স্বাভাবিকভাবেই বর্জন করে দেবে।

অনেকেই মনে করেন এই ব্যবসা শুরু করার জন্য হয়তো প্রচুর পরিমাণে মেশিন বা মূলধনের প্রয়োজন হবে। কিন্তু তা একেবারেই নয়। কোনরকম মেশিন ছাড়াই মাত্র ১৫ হাজার টাকার মধ্যে আপনারা এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তবে যদি আপনার ব্যবসার অবস্থা এবং বাজার চাহিদা ভালো হয়ে থাকে ধীরে ধীরে মেশিন কিনতে কোনরকম সমস্যা নেই। কারণ মেশিন কিনলে আপনার কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে আগের তুলনায়।

এইতো গেল ব্যবসা শুরু করার পদ্ধতি। এবার আসা যাক কিভাবে ব্যবসাকে দাঁড় করানো হবে সেই দিকে। যদি আপনি নমকিন বা চানাচুর জাতীয় খাদ্য তৈরীর এই বিজনেস কে দাঁড় করাতে চান সে ক্ষেত্রে আপনার বিজনেস যেহেতু উৎ্পাদন মুখী বিজনেস তাই আপনাকে পাইকারী দরে বিক্রয় করতে হবে । আপনাকে প্রথমে পেকেটজাত করন করতে হবে । এবং আপনার পোডাকটির একটি নাম নির্ধারন করতে হবে ।

পেকেট ভিভিন্ন সাইজে করতে পারেন তবে আপনি প্রচলিত সাইজে করতে চেষ্টা করবেন । তবে আপনার পোডাকটি প্লাস্টিক পলিথিন বা কোন প্লাস্টিক বোয়মে করে বিক্রয় করতে পারেন । চেষ্টা করবেন আপনার পোডাকটি যেন মানসম্পন্ন হয়। আপনার পোডাকটি বেশি বিক্রয় জন্য আপনি মপরসল দোকানের প্রতি খেয়াল রাখবেন । প্রথম আবস্থায় দোকনদারদের কিছু গিফট দিতে পারেন এতে তারা আপনার পন্যটি বেশি চলবে ।

সবশেষে একটাই কথা বলব যে কোন ব্যবসা শুরু করার আগেই কিন্তু ভালোভাবে যাচাই করে নিতে হয় নয়তো ভবিষ্যতে সমস্যার মুখোমুখি পড়তে পারেন।। যে পণ্যটি আপনি উৎপাদন করছেন তা চানাচুর হোক বা নিমকি জাতীয় অন্য কিছু সেটা তৈরীর প্রকৃত ভালো পদ্ধতি কিন্তু আপনাকে জানতে হবে। কারণ আপনার স্বাদের উপর নির্ভর করবে মানুষের চাহিদা। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনটি আপনাদের কতটা কাজে লাগলো তা অবশ্যই জানাতে ভুলবেন না। এই ধরনের আরও ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে জানতে আমাদের পরবর্তী প্রতিবেদন গুলির উপর নজর রাখতে পারেন।

Back to top button