খুবই অল্প পুঁজিতে বাংলায় প্রথম আপনিই শুরু করুন এই দুর্দান্ত ব্যবসা, মাত্র কয়েক মাসেই হবেন লাখপতি

নিজস্ব প্রতিবেদন: ব্যবসা করতে চান? কিন্তু বুঝতে পারছেন না ঠিক কি ধরনের ব্যবসা আপনার জন্য উপযুক্ত? এই অবস্থায় কীভাবে এগোবেন? আসুন একটু আলোচনা করে দেখা যাক। বর্তমানে দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে। লক্ষ্য করে দেখবেন একশ্রেণীর মানুষের কাছে সমস্ত কিছু থাকলেও, আরেক শ্রেণী কিন্তু বেশ অসুবিধার মুখোমুখি হন উপার্জনকে কেন্দ্র করে। বিশেষ করে সাধারণ মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে যেহেতু বড় অংকের মূলধন থাকে না তাই চট করে কোন ব্যবসা বা কাজ শুরু করা সম্ভব হয় না।

এদিকে লকডাউনের পর থেকে সরকারি বা বেসরকারি ক্ষেত্রেও চাকরি পাওয়ার অংকটা খুব একটা বড় নয়। সমস্ত দিকের কথা মাথায় রেখে আপনারা কিন্তু এমন ইউনিট বিজনেস শুরু করতে পারেন যেখানে বিনিয়োগ হবে কম, অন্যদিকে উপার্জন হবে বেশি। কমবেশি আপনারা অনেকেই বিভিন্ন দোকান বাজারের ব্যবসা শুরু করার কথা হয়তো ভাবছেন; কিন্তু এইসব একেবারেই না করে আপনারা কিন্তু ক্রিয়েটিভ কিছু ট্রাই করতে পারেন।

আজ আমরা বলবো 3d crystal photo cube এর বিজনেসের কথা। ঘর সাজানো বা উপহারের ভিত্তিতে এই জিনিসটির চাহিদা কিন্তু বর্তমান সময়ের বাজারে ব্যাপক পরিমাণে রয়েছে বলা যায়। তবে এটি তৈরি করার পদ্ধতি বা বিস্তারিত খুব একটা কারুর পক্ষেই জানা নেই। পাঠকদের উদ্দেশ্যে প্রথমেই এই ব্যবসাটি সম্পর্কে কিছু জিনিস জানিয়ে রাখি।

এই ক্ষেত্রে আপনাদের পছন্দ সই কোন ফটো বা বিষয় সহজেই ব্লকের ভেতরে একটি 3D মডেলে ভাসমান অবস্থায় খোদাই করা যেতে পারে।আপনি যে কোনো কোণে বিভিন্ন চেহারা এটি দেখতে পারেন.এজন্য আমরা একে 3D লেজার এনগ্রেভিং, সাবসারফেস লেজার এনগ্রেভিং (SSLE), বা 3D ক্রিস্টাল এনগ্রেভিং বলি।

এটি ঠিক একটি সুনির্দিষ্ট এবং দ্ব্যর্থহীন লেজার অপারেশন।ডায়োড দ্বারা উত্তেজিত সবুজ লেজার হল সর্বোত্তম লেজার রশ্মি যা উপাদান পৃষ্ঠের মধ্য দিয়ে যায় এবং ক্রিস্টাল এবং কাচের ভিতরে প্রতিক্রিয়া জানায়। এবার আসা যাক এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাদের কি করতে হবে সেই কথায়। শুধুমাত্র একটি মেশিন কিনে আপনারা বাড়ি থেকেই কিন্তু এই ব্যবসা চালু করতে পারেন। খুব বেশি জায়গার প্রয়োজন পড়বে না এই ক্ষেত্রে।

এমনকি কোন লাইসেন্সের ও প্রয়োজন হবে না। ফুলটাইম অথবা পার্ট টাইম দুভাবেই এই ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। বাড়িতে মেশিন কিনে খুব সহজে বিভিন্ন কাস্টমাইজ অর্ডার নিয়ে আপনারা এটি করে বিক্রি করতে পারবেন। শুরু করার আগে নিজেদের পছন্দসই কিছু মডেল বানিয়ে আপনারা প্রচার চালাতে পারেন। তবে মনে রাখবেন যাতে আপনার ক্রিয়েটিভিটি সকলের তুলনায় একটু আলাদা হয়।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকে ক্ষেত্র হিসেবে বেছে নেওয়া যেতে পারে। অনেকেই আজকাল অনলাইনে বিভিন্ন কাস্টমাইজের ব্যবসা করে থাকেন। যেহেতু এই প্রোডাক্ট গুলির চাহিদা ঘর সাজানো বা উপহার দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে রয়েছে সুতরাং উপার্জন নিয়ে আপনাদের কোন চিন্তা করতে হবে না। বিস্তারিত জানতে হলে আমাদের প্রতিবেদনের সঙ্গে থাকা ভিডিওটি একবার দেখে নিতে পারেন।।

Back to top button