“বারবার খালি রিমেক! আমরা রিমেক করার কে? অন্যের কাজকে সম্মান করা উচিত”, নাম না করে নেহা কক্করকে কটাক্ষ এ.আর. রহমানের

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে বলিউড ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম বিতর্কিত গায়িকা হিসেবে কিন্তু আমরা প্রথমেই নেহা কক্করের নাম বলতে পারি। বরাবর থেকেই বিভিন্ন বলিউড গানের রিমেক তৈরি করে নানান ধরনের সমালোচনার মুখোমুখি পড়েছেন নেহা। সম্প্রতি আবারো সেই একই ঘটনার মুখোমুখি গায়িকা। ‘ও সজনা’ গানের রিমেক তৈরী করে মহা ফাঁপরে পড়েছেন তিনি।

দিন প্রতিদিন এই রিমেক এই সং টিকে কেন্দ্র করে বিতর্ক যেন বেড়েই চলেছে। ইতিমধ্যেই নিজের গান এভাবে নষ্ট হতে দেখে  চুপ থাকতে পারেননি ফাল্গুনী পাঠক। যদিও তাকে পাল্টা জবাব দিতে ছাড়েননি, গায়িকা নেহা কক্করও। এমতাবস্থায় সম্পূর্ণ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে এবারে মুখ খুলেছেন অস্কার জয়ী বিখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক এবং গায়ক এ আর রহমান। সম্প্রতি একটি বিদেশি পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে রিমেক প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা বলেছেন এই সংগীত পরিচালক তথা গায়ক।

প্রসঙ্গত এ আর রহমানের এই সাক্ষাৎকার দেখে স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে যে রিমেক ব্যাপারটাকে একেবারেই পছন্দ করেন না বা বলা যায়। এ আর রহমানের কথায়, “আমি এটাকে যত দেখি ততই দেখি এটা বিকৃত হয়ে যাচ্ছে। কম্পোজারের মনোভাব বিকৃত হয়ে যাচ্ছে। লোকে বলেন আমি এটার পুনঃকল্পনা করছি। আমরা কে পুনঃকল্পনা করার। আমি নিজেও অপরের কাজ নিয়ে খুব সতর্ক থাকি। সম্মান করা উচিত। আমার মনে হয় এটি একটি ধূসর জিনিস।

আমাদের এই জিনিসটিকে ঠিক করা উচিত’’। তারপর ওই সংবাদমাধ্যমের তরফে এ আর রহমান কে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে,বিভিন্ন মিউজিক কম্পোজারদের তরফ থেকে তার কাছে নিজেরই কোনো আইকনিক গান রিমেকের অফার আসে কিনা। আর সেই প্রশ্নের জবাবে রহমান সাফ জানিয়ে দেন, ‘তাদের তেলেগু মিউজিক লঞ্চে প্রযোজকরা বলেছিলেন, আপনাদের দু’জন (এ আর রহমান এবং মণি রত্নম) যে গানগুলি বানান সেগুলি খুবই নতুন ধরণের হয়। আর সবাই সেই কদর করে’।

জানিয়ে রাখি সোজাসুজি নেহা কক্করের নাম এই প্রসঙ্গে উল্লেখ করেননি এ আর রহমান। তবে আমরা সকলেই কমবেশি জানি সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বলিউড গানের রিমেক তৈরি করতে সবথেকে বেশি সিদ্ধহস্ত নেহা। তবে এ আর রহমানের কথা শুনে স্পষ্টভাবেই বোঝা যাচ্ছে আকারে ইঙ্গিতে নেহা কক্করকেই দু কথা শুনিয়ে দিলেন তিনি।

উল্লেখ্য নেহা কক্করের সম্প্রতি রিমেক করা গান ‘ও সজনা’ গানের আসল নির্মাতা ফাল্গুনী পাঠক নেহার গানের ব্যাপারে বেশ কড়া ভাষায় মন্তব্য করেছিলেন। ফাল্গুনীর দাবি ছিল,এই গানটি শুনে তার বমি করাই বাকি ছিল। যদিও তার এই মন্তব্যের পরে পাল্টা প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে নেহা বলেন,“যাই বলুক না কেন তাঁর কিছু যায় আসে না। কারণ সবাই জানে কে তিনি। অতএব তাকে আর নতুন করে চেনার কোন প্রয়োজন নেই”।

Back to top button