মরণ বাঁচন খেলার শিকার অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা, হাসপাতালে ভর্তি থাকায় তাকে ছাড়াই শুরু হল গোয়ার শ্যুটিং

নিজস্ব প্রতিবেদন: টেলিভিশনের একজন পরিচিত মুখ ঐন্দ্রিলা শর্মা। তবে অভিনেত্রী হওয়ার পাশাপাশি তার আরও একটি পরিচয় রয়েছে।ইতিপূর্বে দু-দুবার ক্যান্সারের মতো মারণব্যাধিকে হারিয়ে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন তিনি। এত কম বয়সে এই কঠিন লড়াই চালিয়ে যাওয়ার মানসিকতা হয়তো খুব কম মানুষের মধ্যেই থাকে।

তবে ভাগ্যের পরিহাস কিন্তু খুবই নিষ্ঠুর। পরপর দুইবার ক্যান্সার জয় করে আসার পরেও গত মঙ্গলবার আবারও ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছেন অভিনেত্রী।বাড়িতে থাকা অবস্থাতেই অসাড় হয়ে গিয়েছিল অভিনেত্রীর গোটা শরীর। শুরু হয়েছিল বমিও। সেই অবস্থায় যখন কোনমতে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তখন চিকিৎসকেরা জানান অভিনেত্রীর মস্তিষ্কে পর্যন্ত রক্তক্ষরণ শুরু হয়ে গিয়েছে।

হাসপাতালের চিকিৎসকদের কাছে আর কোন উপায় ছিল না অস্ত্রপোচার করা ছাড়া।মঙ্গলবার রাতেই হাওড়ার বেসরকারি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার হয় ঐন্দ্রিলার মস্তিকে। ব্যাস তারপরেই কোমায় চলে গিয়েছেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা। ২৪ ঘন্টার মধ্যে একবার চোখ মেলে তাকালেও সেরকম ভাবে কিছুই সাড়া দিচ্ছেন না। বিভিন্ন সূত্রের খবর অনুযায়ী এখনো অভিনেত্রীর অবস্থা অনেকটাই আশঙ্কাজনক।তাই এই মুহূর্তে গোটা বাংলার মানুষের ঈশ্বরের কাছে একটাই প্রার্থনা, যে করেই হোক যত দ্রুত সম্ভব সেরে উঠুক ঐন্দ্রিলা শর্মা।

তবে জানেন কি? যদি তিনি সুস্থ অবস্থায় থাকতেন তাহলে এখন হাসপাতালের বেড নয়,শুটিং ফ্লোর হতো তার জায়গা।আসলে ‘ভাগাড়’ সিরিজ়ের পর নতুন ছবির কাজের জন্য গোয়ায় যাওয়ার কথা ছিল ঐন্দ্রিলা শর্মার। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাসে এখন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন অভিনেত্রী। তবে বিনোদন জগত তো আর আটকে থাকে না। তাই ঐন্দ্রিলার জায়গায় শুটিংয়ের জন্য ইতিমধ্যেই নিয়ে নেওয়া হয়েছে নতুন অভিনেত্রীকে।

তবে ঐন্দ্রিলার এমন শারীরিক অসুস্থতার সময় নির্মাতাদের এমন আচরণ একেবারেই ভালো চোখে দেখছেন না ইন্ডাস্ট্রির একাংশ। তাদের একাংশ মনে করছেন ঐন্দ্রিলা সুস্থ হওয়ার জন্য কিছুদিন অন্তত নির্মাতাদের অপেক্ষা করা উচিত ছিল। আসলে মানুষের মধ্যে এখন সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানবিকতা হারিয়ে গিয়েছে। পরিস্থিতি যাই হোক না কেন মানুষ পিছিয়ে থাকতে চায় না। তবে আমরা আশা করব যাই হোক না কেন ঐন্দ্রিলা যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন।

Back to top button